নেত্রকোনা ০২:১২ অপরাহ্ন, রবিবার, ২১ এপ্রিল ২০২৪, ৮ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

বাড়ীঘরে হামলা নির্যাতন ও জমি চাষাবাদে বাঁধা প্রদানে নেত্রকোনায় মানববন্ধন ও স্মারকলিপি প্রদান

  • আপডেট : ১০:৫৫:৪৮ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯
  • ৩৩৭

কে. এম. সাখাওয়াত হোসেন, নেত্রকোনা :

নেত্রকোনা জেলার বারহাট্টা উপজেলার আসমা ইউনিয়নের গোড়ল গ্রামের সন্ত্রাসী চাঁদাবাজ সাইফুল বাহিনী কর্তৃক শিক্ষক আব্দুল হান্নানের বাড়ীঘরে হামলা, ভাংচুর, অগ্নিসংযোগ, অব্যাহত অত্যাচার, নির্যাতন ও জমি চাষাবাদে বাঁধা প্রদানের প্রতিবাদে এলাকাবাসীর উদ্যোগে মঙ্গলবার দুপুরে নেত্রকোনা জেলা প্রেসক্লাবের সামনে এক মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়েছে।

মানববন্ধন চলাকালে সন্ত্রাসী সাইফুল বাহিনীর অত্যাচার নির্যাতনের বিভিন্ন চিত্র তুলে ধরে বক্তব্য রাখেন মো. দুলাল মিয়া, মো. মাহবুব উদ্দিন, মো. লোকমান হোসেন, মো. হবিব গনি, আব্দুল মান্নান, মাহফুজ, আব্দুল কদ্দুছ ও সুমন শেখ প্রমূখ।

তারা চরম ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, গোড়ল গ্রামের সাইফুল ক্ষমতাসীন দলের নাম ভাঙ্গিয়ে এমন কোন অপকর্ম নাই যে সে করে না। তার অপকর্মে কেই প্রতিবাদ করলে তার উপর নেমে আসে অত্যাচার নির্যাতন। সাইফুলের গরু শিক্ষক আব্দুল হান্নানের ক্ষেত খেয়ে ফেললে হান্নানের ছোট ভাই মান্নান এর প্রতিবাদ জানায়।

এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে সাইফুল বাহিনী ধারালো অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে শিক্ষক আব্দুল হান্নানের বাড়ীঘরে হামলা, ভাংচুর ও অগ্নিসংযোগ করে। এ ব্যাপারে সাইফুল গংদের বিরুদ্ধে মামলা করায় তারা ক্ষিপ্ত হয়ে মামলা তুলে নেয়ার জন্য বাদী ও স্বাক্ষীদেরকে নানা ধরণের অত্যাচার নির্যাতন এবং অব্যাহত প্রাণনাশের হুমকি দিয়ে আসছে।

হান্নান ও তার পরিবারের লোকজন জমিতে হালচাষ করতে গেলে সন্ত্রাসী সাইফুল বাহিনী তাদেরকে মারধর করে জমি থেকে তাড়িয়ে দিচ্ছে। আমন আবাদ প্রায় শেষ হতে চললেও সন্ত্রাসী সাইফুল বাহিনীর ভয়ে হান্নান ও তার পরিবারের লোকজন প্রায় ৫ একর জমিতে চাষাবাদ করতে পারছে না।

পরে এলাকাবাসী সন্ত্রাসী সাইফুল বাহিনীর অত্যাচার নির্যাতনের হাত থেকে গ্রামের সহজ সরল লোকজনকে রক্ষা এবং ন্যায় বিচারের প্রত্যাশায় জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপার বারবরে স্মারকলিপি প্রদান করে।

এ ব্যাপারে পুলিশ সুপার আকবর আলী মুন্‌সী সাথে যোগাযোগ করলে তিনি বলেন, বিষয়টি সুষ্ঠু তদন্ত পূর্বক অপরাধীদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়ার জন্য বারহাট্টা থানার ওসিকে নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

আপনার মন্তব্য লিখুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষণ করুন

প্রকাশক ও সম্পাদক সম্পর্কে-

আমি মো. শফিকুল আলম শাহীন। আমি একজন ওয়েব ডেভেলপার ও সাংবাদিক । আমি পূর্বকণ্ঠ অনলাইন প্রকাশনার সম্পাদক ও প্রকাশক। আমি জীবনের প্রতিটি ক্ষেত্রে ইতিবাচক। আমি করতে, দেখতে এবং অভিজ্ঞতা করতে পছন্দ করি এমন অনেক কিছু আছে। আমি আইটি সেক্টর নিয়ে বিভিন্ন এক্সপেরিমেন্ট করতে পছন্দ করি। যেমন ওয়েব পেজ তৈরি করা, বিভিন্ন অ্যাপ তৈরি করা, অনলাইন রেডিও স্টেশন তৈরি করা, অনলাইন সংবাদপত্র তৈরি করা ইত্যাদি। আমাদের প্রকাশনা “পূর্বকন্ঠ” স্বাধীনতার চেতনায় একটি নিরপেক্ষ জাতীয় অনলাইন । পাঠক আমাদের সবচেয়ে বড় অনুপ্রেরনা। পূর্বকণ্ঠ কথা বলে বাঙালির আত্মপ্রত্যয়ী আহ্বান ও ত্যাগে অর্জিত স্বাধীনতার। কথা বলে স্বাধীনতার চেতনায় উদ্বুদ্ধ হতে। ছড়িয়ে দিতে এ চেতনা দেশের প্রত্যেক কোণে কোণে। আমরা রাষ্ট্রের আইন কানুন, রীতিনীতির প্রতি শ্রদ্ধাশীল। দেশপ্রেম ও রাষ্ট্রীয় আইন বিরোধী এবং বাঙ্গালীর আবহমান কালের সামাজিক সহনশীলতার বিপক্ষে পূর্বকন্ঠ কখনো সংবাদ প্রকাশ করে না। আমরা সকল ধর্মমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল, কোন ধর্মমত বা তাদের অনুসারীদের অনুভূতিতে আঘাত দিয়ে আমরা কিছু প্রকাশ করি না। আমাদের সকল প্রচেষ্টা পাঠকের সংবাদ চাহিদাকে কেন্দ্র করে। তাই পাঠকের যে কোনো মতামত আমরা সাদরে গ্রহন করব।

ইরাকে সামরিক ঘাঁটিতে বিস্ফোরণ, হতাহত ৯

বাড়ীঘরে হামলা নির্যাতন ও জমি চাষাবাদে বাঁধা প্রদানে নেত্রকোনায় মানববন্ধন ও স্মারকলিপি প্রদান

আপডেট : ১০:৫৫:৪৮ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯

কে. এম. সাখাওয়াত হোসেন, নেত্রকোনা :

নেত্রকোনা জেলার বারহাট্টা উপজেলার আসমা ইউনিয়নের গোড়ল গ্রামের সন্ত্রাসী চাঁদাবাজ সাইফুল বাহিনী কর্তৃক শিক্ষক আব্দুল হান্নানের বাড়ীঘরে হামলা, ভাংচুর, অগ্নিসংযোগ, অব্যাহত অত্যাচার, নির্যাতন ও জমি চাষাবাদে বাঁধা প্রদানের প্রতিবাদে এলাকাবাসীর উদ্যোগে মঙ্গলবার দুপুরে নেত্রকোনা জেলা প্রেসক্লাবের সামনে এক মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়েছে।

মানববন্ধন চলাকালে সন্ত্রাসী সাইফুল বাহিনীর অত্যাচার নির্যাতনের বিভিন্ন চিত্র তুলে ধরে বক্তব্য রাখেন মো. দুলাল মিয়া, মো. মাহবুব উদ্দিন, মো. লোকমান হোসেন, মো. হবিব গনি, আব্দুল মান্নান, মাহফুজ, আব্দুল কদ্দুছ ও সুমন শেখ প্রমূখ।

তারা চরম ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, গোড়ল গ্রামের সাইফুল ক্ষমতাসীন দলের নাম ভাঙ্গিয়ে এমন কোন অপকর্ম নাই যে সে করে না। তার অপকর্মে কেই প্রতিবাদ করলে তার উপর নেমে আসে অত্যাচার নির্যাতন। সাইফুলের গরু শিক্ষক আব্দুল হান্নানের ক্ষেত খেয়ে ফেললে হান্নানের ছোট ভাই মান্নান এর প্রতিবাদ জানায়।

এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে সাইফুল বাহিনী ধারালো অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে শিক্ষক আব্দুল হান্নানের বাড়ীঘরে হামলা, ভাংচুর ও অগ্নিসংযোগ করে। এ ব্যাপারে সাইফুল গংদের বিরুদ্ধে মামলা করায় তারা ক্ষিপ্ত হয়ে মামলা তুলে নেয়ার জন্য বাদী ও স্বাক্ষীদেরকে নানা ধরণের অত্যাচার নির্যাতন এবং অব্যাহত প্রাণনাশের হুমকি দিয়ে আসছে।

হান্নান ও তার পরিবারের লোকজন জমিতে হালচাষ করতে গেলে সন্ত্রাসী সাইফুল বাহিনী তাদেরকে মারধর করে জমি থেকে তাড়িয়ে দিচ্ছে। আমন আবাদ প্রায় শেষ হতে চললেও সন্ত্রাসী সাইফুল বাহিনীর ভয়ে হান্নান ও তার পরিবারের লোকজন প্রায় ৫ একর জমিতে চাষাবাদ করতে পারছে না।

পরে এলাকাবাসী সন্ত্রাসী সাইফুল বাহিনীর অত্যাচার নির্যাতনের হাত থেকে গ্রামের সহজ সরল লোকজনকে রক্ষা এবং ন্যায় বিচারের প্রত্যাশায় জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপার বারবরে স্মারকলিপি প্রদান করে।

এ ব্যাপারে পুলিশ সুপার আকবর আলী মুন্‌সী সাথে যোগাযোগ করলে তিনি বলেন, বিষয়টি সুষ্ঠু তদন্ত পূর্বক অপরাধীদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়ার জন্য বারহাট্টা থানার ওসিকে নির্দেশ দেয়া হয়েছে।