Agaminews
Dr. Neem Hakim

শ্রীবরদী পৌর বাজারে এলোমেলো বৈদ্যুতিক খুঁটি, নিত্য যানজট


পূর্বকন্ঠ আপডেট : নভেম্বর ২৫, ২০১৯, ১১:৪১ পূর্বাহ্ন / ২৭৭
শ্রীবরদী পৌর বাজারে এলোমেলো বৈদ্যুতিক খুঁটি, নিত্য যানজট

মো. আব্দুল বাতেন,শ্রীবরদী (শেরপুর) সংবাদদাতা:

শ্রীবরদী পৌর শহরের মাঝখানে রাস্তার উপর এলোমেলোভাবে বৈদ্যুতিক খুঁটির কারণে যানবাহন চলাচলে বিঘœ ঘটছে। প্রতিনিয়ত সৃষ্টি হচ্ছে যানজট। ঘটছে দুর্ঘটনা। সড়কের দু’পাশে এলোমেলোভাবে বৈদ্যুতিক খুটির কারণে সড়কটি সংকুচিত হয়ে গেছে। খুঁটিগুলি না সরানোর কারণে সড়কে চলাচলযোগ্য অংশটুকুও ব্যবহার করা যাচ্ছে না। এনিয়ে নিত্য যাত্রী ও পথচারীদের মাঝে ক্ষোভ দেখা দিয়েছে।

সরেজমিনে দেখা গেছে, পৌর শহরের সরকারি হাসপাতাল হতে কলেজ পর্যন্ত দুটি ট্রান্সফরমার সম্বলিত রাস্তার দু’পাশে ৪০টি বৈদ্যুতিক খুঁটি আছে যার অধিকাংশই এলোমেলোভাবে বসানো হয়েছে। যার কারণে সারাক্ষণ যানজট লেগেই থাকে। কলা হাটি ও পান হাটির কোনায় রাস্তা ঘেঁষে হেলানো অবস্থায় দুটি বৈদ্যুতিক খুঁটি বসানোর কারণে এখানেও সবসময় যানজট থাকে। শহরের ভিতরে ইজিবাইক, রিক্সা-ভ্যান যেখানে সেখানে দাঁড়িয়ে থাকে। যা যানজটের আরেকটি কারণ।

জেলা পরিষদ সদস্য আব্দুল্লাহেল আল আমিন বলেন, যদি জনদুর্ভোগের বিষয়টি বাস্তবায়নকারী কর্তৃপক্ষের মাথায় থাকতো তাহলে তারা এলোমেলোভাবে খুঁটিগুলো না বসিয়ে পরিকল্পনা করে বসিয়ে যানবাহন চলাচলের জন্য উন্মুক্ত করে দিত। তিনি বলেন, যানজটের বিষয়টি আমি আইন-শৃংখলা মিটিংয়েও বার বার আলোচনা করেছি। তাতে কোনো ফল হয়নি।

এই আঞ্চলিক মহা সড়কটি পৌর শহরের ভেতর দিয়ে বকশীগঞ্জ, কামালপুর, রাজিবপুর রৌমারী সহ উত্তরাঞ্চল যেতে হয়। পাশের দোকানদার জামাল বস্ত্রালয়ের স্বত্বাধিকারী জামাল উদ্দিন বলেন, বৈদ্যুতিক খুঁটিগুলোর কারণে রাস্তার সৌন্দর্য্যও নষ্ট হয়ে গেছে। খুঁটিগুলি এখনি না সরানো হলে যে কোনো সময় বড় ধরনের দূর্ঘটনা ঘটতে পারে।

কসমেটিকস দোকানের মালিক আনোয়ার হোসেন মুদি দোকান, জুতার দোকান সহ অনেক ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের মালিকগণ বলেন, রাস্তার দু’পাশ ঘেঁষে এলোমেলোভাবে বৈদ্যুতিক খুঁটি বসানোর কারণে সবসময় যানজট লেগেই থাকে তাতে আমাদের ব্যবসা কার্যক্রম বন্ধ হওয়ার উপক্রম হয়ে পড়েছে। রাস্তার মাঝে থাকা খুঁটিগুলি সরিয়ে নিতে তারা কর্তৃপক্ষের প্রতি জোর দাবি জানান। কলেজ পরুয়া হামিদ, ইকবাল, জসিম উদ্দিন ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, মধ্য বাজার এলাকায় যানজটের কারণে অনেক সময় কলেজে পৌঁছতে দেরি হয়।

শ্রীবরদী আবাসিক প্রকৌশলী (বিদ্যুৎ) সুশান্ত পাল বলেন, খুঁটিগুলি আগেই বসানো ছিলো। আমি সরেজমিনে খুঁটিগুলো দেখে সোজা করে বসানোর ব্যবস্থা করবো।

 

সারাদেশ বিভাগের আরো খবর

আরও খবর
এক ক্লিকে বিভাগের খবর