বুধবার, ২০ জানুয়ারী ২০২১, ০৯:৪৭ অপরাহ্ন বাংলা বাংলা English English
ঘোষনা :
৥ সমসাময়িক বিষয় নিয়ে আপনিও চাইলে পূর্বকন্ঠ অনলাইন প্রকাশনায় লিখতে পারেন কলাম অথবা মতামত ৥ আপনার গঠনমূলক লেখা ছাপা হবে যথাযথ গুরুত্ব দিয়ে ৥ অবশ্যই সম্পাদনা সহকারে ৥ প্রয়োজনে : ০১৭১৩৫৭৩৫০২ ৥
পূর্বধলায় ভুল চিকিৎসায় শিশুর মৃত্যু
/ ৫১৯ বার পড়া হয়েছে।
আপডেট : মঙ্গলবার, ১৭ নভেম্বর, ২০২০, ১০:০২ অপরাহ্ন
ভুল
নিহত শিশু জোনাকী।

নেত্রকোনার পূর্বধলায় ডাক্তারের ভুল চিকিৎসায় জোনাকী নামের ১০ মাসের এক শিশুর মৃত্যুর হয়েছে। আজ মঙ্গলবার (১৭ নভেম্বর) বিকেলে উপজেলা সদরের হাসপাতাল গেইট সংলগ্ন মা নামে একটি ডায়গনিস্ট সেন্টারে এ ঘটনা ঘটে।

নিহত জোনাকী উপজেলা সদর ইউনিয়নের ভিতরগাঁও গ্রামের জাহাঙ্গীরের মেয়ে।

এ ঘটনায় উত্তেজিত জনতা ডায়গনিস্ট সেন্টার ও হাসপাতাল ঘেরাও করলে খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।



এ দিকে পুলিশ পূর্বধলা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে কর্মরত উপ-সহকারী কমিউনিটি মেডিকেল অফিসার অভিযুক্ত গোলাম মোস্তফাকে তাদের হেফাজতে নেয় ও শিশুর লাশ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে যায়।

পুলিশ জানায়, শিশুটির মাথায় একটি টিউমার অপারেশনের জন্য আজ বিকেলে তার বাবা পূর্বধলা হাসপাতাল গেইটে মা নামে ডায়গনিস্ট সেন্টারে ডা. গোলাম মোস্তফার চেম্বারে যায়।

সেখানে বিকেল ৫টার দিকে গোলাম মোস্তফা শিশু জোনাকীর টিউমার অপারেশনের জন্য শিশুটির মাথায় লোকাল এনেসথেসিয়া দেওয়ার সাথে সাথে শিশুটি খিচুনী শুরু হয়। তাৎক্ষনিক তাকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কতৃব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষনা করেন।



নিহত শিশু জোনাকীর বাবা জাহাঙ্গীর বলেন, গত ৫মাস আগে তার শিশুর মাথায় একটি টিউমার আকৃতির মতো দেখা দিলে আজ বিকেলে ডা. গোলাম মোস্তফার চেম্বার নিয়ে আসেন। সেখানে ওই টিউমারটি অপারেশনের ডাক্তারের সাথে ১হাজার ৫শ’টাকায় চুক্তি করেন। এর পর ডাক্তার ইনজেকশন দিতেই তার মেয়ের খিচুনী শুরু হয় ও তাৎক্ষণিক সে মারা যায়। তাই আমি এর বিচার চাই।

পূর্বধলা হাসপাতালের কতৃব্যরত ডাক্তার ওয়াহিদুর রহমান মামুন জানান, শিশুটিকে লোকাল এনেসথেসিয়া দেওয়ার পর তার খিচুনী শুরু হলে উপ-সহকারী কমিউনিটি মেডিকেল অফিসার গোলাম মোস্তফা তাকে হাসপাতালের দো-তলায় নার্স রুমে নিয়ে অক্সিজেন দেয়। তাৎক্ষণিক আমি জরুরী বিভাগ থেকে দো-তলায় গিয়ে শিশুটিকে মৃত দেখতে পাই।



এদিকে হাসপাতালের ভারপ্রাপ্ত আরএমও ডা. মো. আজহারুল ইসলাম বলেন, যেহেতু উপ-সহকারী কমিউনিটি মেডিকেল অফিসার গোলাম মোস্তফা শিশু বিশেষজ্ঞ,নিওরো সার্জন বা জেনারেল সার্জন এর কোনোটাই নন সেহেতু তার ভুল চিকিৎসার কারণে এ দুর্ঘটনা ঘটতে পারে।

পূর্বধলা থানার অফিসার ইন-চার্জ (ওসি) মোহাম্মদ তাওহীদুর রহমান ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, ইতোমধ্যেই অভিযুক্ত ডা. গোলাম মোস্তফাকে থানায় পুলিশ হেফাজতে নেয়া হয়েছে। লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। নিহতের পরিবারের পক্ষে অভিযোগ করা হলে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।



এদিকে অভিযুক্ত ডা. গোলাম মোস্তফার সাথে কথা বললে তিনি জানান, শিশুটির মাথায় এটি টিউমার ছিলনা। এটি সামান্য একটি ফোঁড়া ছিল আমি ওই ফোঁড়াটিতে লোকাল ইনজেকশন দেওয়ার পর এ দুর্ঘটনা ঘটে। তবে এমন দুর্ঘটনা ঘটবে এটি আমি বুঝতে পারিনি ।

 

Print Friendly, PDF & Email
আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ জাতীয় আরও সংবাদ
আমাদের ফেসবুক পেইজ