মঙ্গলবার, ০২ মার্চ ২০২১, ১০:২৫ পূর্বাহ্ন বাংলা বাংলা English English
জরুরী নাম্বার সমূহ :
৥ জরুরী সেবা : ৯৯৯ ৥ নেত্রকোনা ফায়ার স্টেশন: ০১৭৮৯৭৪৪২১২ ৥ জেলা প্রশাসক ,নেত্রকোনা:০১৩১৮-২৫১৪০১ ৥ পুলিশ সুপার,নেত্রকোনা: ০১৩২০১০৪১০০ ৥ অতিরিক্ত পুলিশ সুপার, সদর সার্কেল : ০১৩২০১০৪১৪৫ ৥ ইউএনও,পূর্বধলা : ০১৭৯৩৭৬২১০৮ ৥ ওসি পূর্বধলা : ০১৩২০১০৪৩১৫ ৥ সমসাময়িক বিষয় নিয়ে আপনিও চাইলে পূর্বকন্ঠ অনলাইন প্রকাশনায় লিখতে পারেন কলাম অথবা মতামত ৥ আপনার গঠনমূলক লেখা ছাপা হবে যথাযথ গুরুত্ব দিয়ে ৥ অবশ্যই সম্পাদনা সহকারে ৥ প্রয়োজনে : ০১৭১৩৫৭৩৫০২ ৥
সাংবাদিকতাকে আমি যেভাবে দেখি
Avatar
/ ১২২ বার পড়া হয়েছে।
আপডেট : শুক্রবার, ৩০ অক্টোবর, ২০২০, ১২:০৪ অপরাহ্ন

কয়েকদিন ধরে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সাংবাদিকতা নিয়ে নানান মন্তব্য আর হাস্যরসাত্বক কিছু পোস্ট আমাকে খুব পীড়া দিচ্ছে।
আমি মনে করি, সাংবাদিকতা একটা স্মার্ট (পোশাকি স্মার্ট নয়, লেখায় ও শিষ্টাচারে), রুচিশীল ও শিক্ষিত মানুষের পেশা। সাংবাদিকরা শুধু সংবাদ-ই লেখেন না, তারা লিখনির মাধ্যমে মানুষের ভাষা ও সংস্কৃতিকে সমৃদ্ধ করেন। দৃষ্টিভঙ্গি ও জীবনবোধের ইতিবাচক পরিবর্তন করেন। তাই এ পেশায় কাজ করতে হলে প্রতিনিয়ত পড়তে হয়, জানতে হয়। নৈতিক, মানবিক ও সহনশীল হতে হয়। অন্যের প্রতি শ্রদ্ধাবোধ থাকতে হয়। মানুষের জন্য থাকতে হয় দায়বোধ। থাকতে হয় পেশাদারিত্ব।



আসলাম, জয় করলাম, এমন কোনো পেশা না সাংবাদিকতা। সাংবাদিকরা কখনও আত্মপ্রচার করেন না। পর্দার আড়ালে থেকে কাজ করেন। বর্তমানে বাংলাদেশে জাতীয় ও স্থানীয় পর্যায়ে সাংবাদিকতার মান বেড়েছে। বেড়েছে পেশাদারিত্ব। অনেক গণমাধ্যমে এখন সাংবাদিকতার চর্চা হয়। নানান চ্যালেঞ্জ আর প্রতিবন্ধকতার মধ্যে কাজ করেন সাংবাদিকরা। অনেকের রক্ত চক্ষু আর রোষানাল উপেক্ষা করতে হয় তাদের। কিন্তু অনেকে আবার শুধু আত্মপ্রচার, অপসাংবাদিকতা আর অপতৎপরতায় লিপ্ত । কোনো জবাবদিহিতা নেই।

হাতের মুঠোয় জনে জনে একটি করে পত্রিকা, একটি করে টেলিভিশন চ্যানেল (মোবাইল পত্রিকা, অনলাইন, ইউটিউব টিভি)। যেখানে শুধুমাত্র চাইলেই এককভাবে একাই হওয়া যায়, একাধারে সাংবাদিক, প্রতিবেদক, বার্তা সম্পাদক, সম্পাদক, প্রকাশক। মান যেমনই হোক, লিখলেই প্রকাশ করা যায় সংবাদ। সম্পাদনার প্রয়োজন পড়ে না। প্রয়োজন পড়ে না প্রুফ রিডিংয়ের। প্রয়োজন পড়ে না সংবাদের মান বিচারের, এসেই জয় করা যায়! হওয়া যায় স্বঘোষিত নেতা, পাওয়া যায় খেতাব (সবার ক্ষেত্রে প্রযোজ্য না। লেখাটি ব্যক্তিগত ভাবে কাউকে উদ্দেশ্য করে বা আঘাত দিতে নয়, তাই কেউ কষ্ট পেলে ক্ষমা চেয়ে নিচ্ছি)।



এমন কর্মকান্ড নিয়ে প্রায়ই মানুষকে হাস্যরস করতেও শোনা যায়। তবে এটাও সত্য, এক সময় অপসাংবাদিকতা আস্তাকুঁড়ে নিক্ষিপ্ত হয়, আর টিকে থাকে সুসাংবাদিকতা। শুভবাদ সুসাংবাদিকতা, শুভবাদ মানবতা। ‘মুজিববর্ষের অঙ্গীকার, হলুদ সাংবাদিকতা পরিহার’।

মোহাম্মদ গোলাম মোস্তফা: সাংবাদিক, শিক্ষক।

শেয়ার করুন..
এ জাতীয় আরও সংবাদ
আমাদের ফেসবুক পেইজ
এক ক্লিকে বিভাগের খবর

আর্কাইভ ক্যালেন্ডার

SatSunMonTueWedThuFri
  12345
6789101112
13141516171819
2728     
       
     12
3456789
31      
     12
3456789
10111213141516
17181920212223
24252627282930
       

গুগল ম্যাপে পূর্বকন্ঠ