মঙ্গলবার, ২৬ জানুয়ারী ২০২১, ০৩:১৬ পূর্বাহ্ন বাংলা বাংলা English English
ঘোষনা :
৥ সমসাময়িক বিষয় নিয়ে আপনিও চাইলে পূর্বকন্ঠ অনলাইন প্রকাশনায় লিখতে পারেন কলাম অথবা মতামত ৥ আপনার গঠনমূলক লেখা ছাপা হবে যথাযথ গুরুত্ব দিয়ে ৥ অবশ্যই সম্পাদনা সহকারে ৥ প্রয়োজনে : ০১৭১৩৫৭৩৫০২ ৥
পূর্বকন্ঠে সংবাদ প্রকাশের পর পূর্বধলায় মোবাইল নেটওয়ার্কের আওতায় আসছেন ১০গ্রামের মানুষ
/ ৮৪৮ বার পড়া হয়েছে।
আপডেট : শনিবার, ১৭ অক্টোবর, ২০২০, ১২:৫৪ অপরাহ্ন

নেত্রকোনার পূর্বধলা উপজেলার জারিয়া ইউনিয়নের মৌদামসহ আশপাশের ১০ গ্রামের মানুষ অবশেষে মোবাইল ফোন নেটওয়ার্কের আওতায় আসছে। মোবাইল ফোন কোম্পানি বাংলালিংক ওই এলাকায় টাওয়ার নির্মাণের উদ্যোগ নিয়েছে।

এতে এলাকাবাসী আনন্দিত হওয়ার পাশাপাশি বাংলালিংক কোম্পানিকে কৃতজ্ঞতা ও ধন্যবাদ জানিয়েছেন। গত ২ অক্টোবর পূর্বকন্ঠ অনলাইন প্রকশনায় “পূর্বধলার মৌদাম গ্রামে মোবাইল ফোনের নেটওয়ার্ক বিড়ম্বনা, ডিজিটাল সেবা থেকে বঞ্চিত সাধারণ মানুষ” এই শিরোনামে ও ৩ অক্টোবর দৈনিক ইত্তেফাক পত্রিকার অনলাইন সংস্করণ ও ৪ অক্টোবর ছাপা সংস্করণসহ বিভিন্ন গণমাধ্যমে “পূর্বধলায় বিভিন্ন স্থানে মোবাইল ফোনের নেটওয়ার্ক বিড়ম্বনা ও পূর্বধলায় মোবাইল নেটওয়ার্ক বিড়ম্বনায় মানুষ” শিরোনামে সংবাদ প্রকাশ হয়।



স্থানীয়রা জানান, মৌদাম গ্রামে টাওয়ার স্থাপনের জন্য ইতোমধ্যে জায়গা নির্ধারণ ও মাটি পরীক্ষা করা হয়েছে।
বাংলালিংকের নেটওয়ার্ক সম্প্রসারণের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট সার্ভেয়ার তামিম ইকবাল বলেন, ওই এলাকায় নেটওয়ার্ক সম্প্রসারণের লক্ষ্যে মৌদাম গ্রামে একটি টাওয়ার স্থাপনের জন্য জায়গা নির্ধারণ ও মাটি পরীক্ষা করা হয়েছে। আশা করছি শিগগিরই কাজ শুরু হবে।

টাওয়ার স্থাপনের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট অ্যাডভোকেট বাবুল হোসেন বলেন, ওই এলাকায় টাওয়ার স্থাপনের জন্য নির্বাচিত জায়গার আইনগত দিক পরীক্ষা করে চূড়ান্ত করা হয়েছে।

উল্লেখ্য, উপজেলার জারিয়া, ঘাগড়া ও আগিয়া ইউনিয়নের সংযোগস্থল মৌদাম, টিকুরিয়া, পদুরকান্দা, কান্দাপাড়া, বেড়াইল, নোয়াগাঁও, উদুয়ারকান্দা ও রামকান্দাসহ ১০ গ্রামে কোনো মোবাইল ফোন টাওয়ার না থাকায় ফোন কল বা ইন্টারনেট ব্যবহার করা যায় না। এতে ১০ গ্রামের হাজার হাজার মানুষকে চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে।

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ই-লার্নিংসহ বেশিরভাগ কাজ এখন ইন্টারনেটভিত্তিক। পোস্ট ই-সেন্টারে অনলাইন ব্যাংকিং, চাকরিসহ বিভিন্ন আবেদন, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ভর্তি, পরীক্ষার ফলাফল ও বিভিন্ন নাগরিকসেবা রয়েছে। ক্লিনিকেও ই-চিকিৎসাব্যবস্থা আছে। কিন্তু নেটওয়ার্ক গতিশীল না থাকায় এসব সেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে গ্রামগুলোর কয়েক হাজার মানুষ। তারা জরুরি কোনো খবরাখবর আদান-প্রদান করতে পারছে না।



মৌদাম গ্রামের বাসিন্দা শহিদুল আলম মামুন, আবু চান, তাজ উদ্দিনসহ অনেকে বলেন, টাওয়ার নির্মাণের উদ্যোগের কথা জেনে তারা খুবই আনন্দিত। তাই তারা বাংলালিংক কম্পানিকে ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানান।

মৌদাম বাজারের ব্যবসায়ী শামছুল হক মন্ডল ও রাকিব হোসেন বাচ্চু বলেন, নেটওয়ার্ক না থাকায় ব্যবসায়িক প্রয়োজনে মোবাইল ফোনে যোগাযোগের ক্ষেত্রে দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। টাওয়ারটি নির্মাণ হলে ব্যবসার গতিশীলতা বাড়বে।

মৌদাম সেসিপ মডেল উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক নজরুল ইসলাম বলেন, এখানে মোবাইল ফোনের টাওয়ার নির্মাণের উদ্যোগকে তারা স্বাগত জানান। কাজটি শেষ হলে শিক্ষার্থীদের সঙ্গে যোগাযোগ ও তারা ই-লার্নিংয়ের সুবিধা পাবে।

Print Friendly, PDF & Email
এ জাতীয় আরও সংবাদ
আমাদের ফেসবুক পেইজ