শুক্রবার, ২৩ অক্টোবর ২০২০, ০৫:০৭ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
পৃর্বধলায় উপ নির্বাচনী ফলাফল যেন একটি শিক্ষনীয় চিত্র দুর্গাপুরে অবৈধ ব্যান্ডরুল যুক্ত বিড়ি ব্যবসায়ীর কারাদন্ড পূর্বধলায় গণমাধ্যমকর্মীদের নিয়ে অনলাইন কর্মশালার উদ্বোধন জনসাধারণের চলাচলের রাস্তা বন্ধ করায় রাঙামাটিতে সংবাদ সন্মেলন নিরাপদ সড়ক দিবস উপলক্ষে দুর্গাপুরে মানববন্ধন দুর্গাপুরে কলেজ ছাত্রীর আত্মহত্যা গৌরীপুরে শুভ্র’র খুনীদের ফাঁসির দাবিতে মুক্তিযোদ্ধাদের মানববন্ধন শেরপুরে একতা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের দুর্নীতির বিরুদ্ধে মানববন্ধন ধোবাউড়ায় জেলা পরিষদ কর্তৃক পূজা মন্ডপে চেয়ার বিতরণ শারদীয় দুর্গোৎসব উপলক্ষে কলমাকান্দায় সরকারি অনুদান বিতরণ

আউশের ভালো ফলনে কৃষকের মুখে হাসি

পূর্বকন্ঠ ডেস্ক;
  • আপডেট টাইম : রবিবার, ২০ সেপ্টেম্বর, ২০২০, ১০:৪৪ পূর্বাহ্ন
  • ৫১ বার পড়া হয়েছে

বরগুনায় এবার আউশ ধানের বাম্পার ফলন হয়েছে। গত কয়েক বছরের তুলনায় এ বছর ফলন ও দাম বেশি থাকায় কৃষকের মুখে হাসি ফুটেছে।

জেলা কৃষি অফিস সূত্রে জানা গেছে, জেলায় এ বছর আউশ ধান চাষের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছিল ৫৫ হাজার হেক্টর। সেখানে আবাদ হয়েছে ৫৫ হাজার ৫২৫ হেক্টর জমিতে। লক্ষ‌্যমাত্রার চেয়ে ৫২৫ হেক্টর বেশি জমিতে আউশ ধানের চাষ হয়েছে।

কৃষকরা জানান, প্রতি বছর বৈশাখ মাসের মাঝামাঝি থেকে শুরু করে জ্যৈষ্ঠ মাসের মাঝামাঝি পর্যন্ত আউশ ধান রোপণ করেন। এ বছর কৃষকরা বিরি-৪৮ ও বিরি-২৭ দুই জাতের ধান রোপন করেছেন। শুরুতে ঘূর্ণিঝড় আম্ফান আঘাত হানলেও আউশের তেমন ক্ষতি হয়নি।

শ্রাবণ মাসের শেষের দিকে ধান কাটা শুরু হয়ে চলে ভাদ্র মাসের মাঝামাঝি পর্যন্ত। বর্তমানে কৃষকরা ধান কাটা ও মাড়াই কাজে ব্যস্ত সময় পাড় করছেন। বাজারে প্রতিমণ ধান ৯০০ থেকে সাড়ে ৯০০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

সদর উপজেলা, পাথরঘাটা, আমতলী উপজেলার বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখা গেছে কোথাও কোথাও ধান পাকতে শুরু করেছে, আবার কোথাও ধান কাটা হচ্ছে, কোথাও বা ধান মাড়াই করা হচ্ছে।

সদর উপজেলার খাজুরতলা গ্রামের কৃষক খলিল এ বছর ৮০ শতাংশ জমিতে আউশ ধান আবাদ করেছেন।

তিনি বলেন, ‘গত কয়েক বছরের তুলনায় এ বছর ধানের ফলন ভালো হয়েছে।’

বেতাগীর চান্দখালি এলাকার বটতলা গ্রামের কৃষক মুসলিম আলী বলেন, ‘আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় এবার আউশ ধানের আবাদ ভালো হয়েছে।’

পশ্চিম সোনাখালী গ্রামের কৃষক ফজলুর রহমান বলেন, ‘আমি ৬ একর জমিতে আউশ ধান চাষ করেছি। এ বছর ফলন ভালো, ধানের দাম বেশি।’

চাওড়া কাউনিয়া গ্রামের কৃষক নজরুল ইসলাম বলেন, ‘২০ কড়া জমিতে আউশ ধানের চাষ করেছি। গত কয়েক বছরের তুলনায় এ বছর ফলন ভালো হয়েছে। বাজারে ধানের দামও ভালো।’

আমতলী ধান আড়ৎ সমিতির সাধারণ সম্পাদক জাকির হোসেন বলেন, ‘বাজারে আউশ ধানের চাহিদা থাকায় দাম ভালো। প্রতিমণ ধান ৯০০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। এভাবে দাম থাকলে কৃষক লাভবান হবেন।’

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর বরগুনা কার্যালয়ের উপপরিচালক মো. ওয়াদুদ বলেন, এ বছর লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে প্রায় ২ হাজার হেক্টর বেশি জমিতে আউশ আবাদ হয়েছে । গত আমন মৌসুম এবং বোরো মৌসুমে বাজারে ধানের দাম বেশি থাকায় কৃষকরা আউশ ধান আবাদ ঝুঁকেছেন।’

Source link

এ জাতীয় আরও সংবাদ
এক ক্লিকে বিভাগের খবর

©২০২০ সর্বস্তত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত | পূর্বকন্ঠ
কারিগরি সহযোগিতায়- Shahin প্রয়োজনে: ০১৭১৩৫৭৩৫০২

Notice: Undefined index: config_theme in /home/purbakantho/public_html/wp-content/themes/LatestNews/include/root.php on line 33
themesba-lates1749691102