নেত্রকোনা ০৯:৩৩ অপরাহ্ন, বুধবার, ২২ মে ২০২৪, ৮ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় দাফন

না ফেরার দেশে চলে যাওয়া নেত্রকোনার পূর্বধলা উপজেলার আগিয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাতা ও সাবেক প্রধান শিক্ষক, হোগলা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি মোঃ গিয়াস উদ্দিন স্যারকে রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় গার্ড অব অনার প্রদান করে পারিবারিক কবরস্থানে সমাহিত করা হয়েছে।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার উম্মে কুলসুম ও পূর্বধলা থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ তাওহীদুর রহমান এর নেতৃত্বে পুলিশ বাহিনীর একটি চৌকুস দল মরহুমের কফিনে গার্ড অব অনার প্রদান করেন। এ সময় বিউগলে করুণ সুুর বেজে উঠে।

এ সময় সমবেত মুসল্লিদের উদ্দেশ্যে মরহুমের বর্ণাঢ্য মুক্তিযোদ্ধ,সামাজিক-রাজনৈতিক এবং শিক্ষা জীবনের স্মৃতিচারণ ও রুহের মাগফেরাত কামনা করে বক্তব্য রাখেন নেত্রকোনা-৫ আসনের সাংসদ ওয়ারেসাত হোসেন বেলাল (বীরপ্রতীক), পূর্বধলা উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও যুবলীগ উপজেলা কমিটির সভাপতি জাহিদুল ইসলাম সুজন, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান শেখ রাজু আহমেদ (রাজ্জাক সরকার), উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ড কাউন্সিলের সাবেক কমান্ডার মোঃ আয়্যুব আলী, উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক এরশাদ হোসেন মালু, উপজেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ম সাধারন সম্পাদক মোতাহার হোসেন বকুল, জেলা পরিষদ সদস্য মাজহারুল ইসলাম রানা, আগিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সিরাজুল ইসলাম রুবেল,উপজেলা বিএনপি’র সাবেক আহ্বায়ক মোঃ সাইদুর রহমান, সাবেক মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার নিজাম উদ্দীন, জটিয়াবর কলেজের প্রিন্সিপাল গোলাম মোস্তফা।
অন্যান্যের মধ্যে আরো উপস্থিত ছিলেন পূর্বধলা প্রেসক্লাবের সভাপতি সৈয়দ আরিফুজ্জামান, জাতীয় পার্টির সভাপতি ওয়াহিদুর রহমান আজাদ, আওয়ামীলীগ নেতা এটিএম ফয়জুর সিরাজ জুয়েল, প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক মোঃ জায়েজুল ইসলাম, আওয়ামীলীগ নেতা মুজিবুর রহমান, কালাম তালুকদার, হোগলা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান সিরাজুল ইসলাম খোকন, হোগলা ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান মোঃ ইসলাম উদ্দীন, মোঃ হায়দার আলী প্রমুখ।
মরহুম গিয়াস উদ্দিন একজন বীর মুক্তিযোদ্ধাই ছিলেন না তিনি ছিলেন জাতির পিতা শেখ মুজিবুর রহমানের হত্যাকান্ডের পর একজন অন্যতম প্রতিরোধ যোদ্ধা।
তিনি গতকাল ১৫ জানুয়ারি (বুধবার) বিকাল ৫.৫০ মিনিটে হোগলা ইউনিয়নের ভিকুনীয়া গ্রামে নিজ বাড়িতে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৭৫ বছর। মৃত্যুকালে তিনি স্ত্রী, চার ছেলে ও এক মেয়েসহ বহু গুণগ্রাহী রেখে গেছেন।
মরহুমের জানাজায় বিভিন্ন রাজনৈতিক ব্যক্তি ছাড়াও মুক্তিযোদ্ধা, সাংবাদিক, শিক্ষকসহ এলাকার সবস্তরের মানুষজন উপস্থিত ছিলেন। সূত্র: আজকের আরবান।

আপনার মন্তব্য লিখুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষণ করুন

প্রকাশক ও সম্পাদক সম্পর্কে-

আমি মো. শফিকুল আলম শাহীন। আমি একজন ওয়েব ডেভেলপার ও সাংবাদিক । আমি পূর্বকণ্ঠ অনলাইন প্রকাশনার সম্পাদক ও প্রকাশক। আমি জীবনের প্রতিটি ক্ষেত্রে ইতিবাচক। আমি করতে, দেখতে এবং অভিজ্ঞতা করতে পছন্দ করি এমন অনেক কিছু আছে। আমি আইটি সেক্টর নিয়ে বিভিন্ন এক্সপেরিমেন্ট করতে পছন্দ করি। যেমন ওয়েব পেজ তৈরি করা, বিভিন্ন অ্যাপ তৈরি করা, অনলাইন রেডিও স্টেশন তৈরি করা, অনলাইন সংবাদপত্র তৈরি করা ইত্যাদি।

পূর্বধলায় উপজেলা নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ালেন চেয়ারম্যান প্রার্থী

রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় দাফন

আপডেট : ০৬:৫৫:৩৮ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৬ জানুয়ারী ২০২০

না ফেরার দেশে চলে যাওয়া নেত্রকোনার পূর্বধলা উপজেলার আগিয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাতা ও সাবেক প্রধান শিক্ষক, হোগলা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি মোঃ গিয়াস উদ্দিন স্যারকে রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় গার্ড অব অনার প্রদান করে পারিবারিক কবরস্থানে সমাহিত করা হয়েছে।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার উম্মে কুলসুম ও পূর্বধলা থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ তাওহীদুর রহমান এর নেতৃত্বে পুলিশ বাহিনীর একটি চৌকুস দল মরহুমের কফিনে গার্ড অব অনার প্রদান করেন। এ সময় বিউগলে করুণ সুুর বেজে উঠে।

এ সময় সমবেত মুসল্লিদের উদ্দেশ্যে মরহুমের বর্ণাঢ্য মুক্তিযোদ্ধ,সামাজিক-রাজনৈতিক এবং শিক্ষা জীবনের স্মৃতিচারণ ও রুহের মাগফেরাত কামনা করে বক্তব্য রাখেন নেত্রকোনা-৫ আসনের সাংসদ ওয়ারেসাত হোসেন বেলাল (বীরপ্রতীক), পূর্বধলা উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও যুবলীগ উপজেলা কমিটির সভাপতি জাহিদুল ইসলাম সুজন, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান শেখ রাজু আহমেদ (রাজ্জাক সরকার), উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ড কাউন্সিলের সাবেক কমান্ডার মোঃ আয়্যুব আলী, উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক এরশাদ হোসেন মালু, উপজেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ম সাধারন সম্পাদক মোতাহার হোসেন বকুল, জেলা পরিষদ সদস্য মাজহারুল ইসলাম রানা, আগিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সিরাজুল ইসলাম রুবেল,উপজেলা বিএনপি’র সাবেক আহ্বায়ক মোঃ সাইদুর রহমান, সাবেক মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার নিজাম উদ্দীন, জটিয়াবর কলেজের প্রিন্সিপাল গোলাম মোস্তফা।
অন্যান্যের মধ্যে আরো উপস্থিত ছিলেন পূর্বধলা প্রেসক্লাবের সভাপতি সৈয়দ আরিফুজ্জামান, জাতীয় পার্টির সভাপতি ওয়াহিদুর রহমান আজাদ, আওয়ামীলীগ নেতা এটিএম ফয়জুর সিরাজ জুয়েল, প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক মোঃ জায়েজুল ইসলাম, আওয়ামীলীগ নেতা মুজিবুর রহমান, কালাম তালুকদার, হোগলা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান সিরাজুল ইসলাম খোকন, হোগলা ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান মোঃ ইসলাম উদ্দীন, মোঃ হায়দার আলী প্রমুখ।
মরহুম গিয়াস উদ্দিন একজন বীর মুক্তিযোদ্ধাই ছিলেন না তিনি ছিলেন জাতির পিতা শেখ মুজিবুর রহমানের হত্যাকান্ডের পর একজন অন্যতম প্রতিরোধ যোদ্ধা।
তিনি গতকাল ১৫ জানুয়ারি (বুধবার) বিকাল ৫.৫০ মিনিটে হোগলা ইউনিয়নের ভিকুনীয়া গ্রামে নিজ বাড়িতে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৭৫ বছর। মৃত্যুকালে তিনি স্ত্রী, চার ছেলে ও এক মেয়েসহ বহু গুণগ্রাহী রেখে গেছেন।
মরহুমের জানাজায় বিভিন্ন রাজনৈতিক ব্যক্তি ছাড়াও মুক্তিযোদ্ধা, সাংবাদিক, শিক্ষকসহ এলাকার সবস্তরের মানুষজন উপস্থিত ছিলেন। সূত্র: আজকের আরবান।