নেত্রকোনা ০১:৪৪ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১০ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

রাঙ্গামাটি জেলা পরিষদ চেয়ারম্যানের সঙ্গে বিশ্ব ব্যাংকের টিমের সদস্যদের সাক্ষাৎ

  • আপডেট : ০৭:২০:১৭ অপরাহ্ন, সোমবার, ১৭ ফেব্রুয়ারী ২০২০
  • ১১৯০ বার পঠিত

মহুয়া জান্নাত মনি.রাঙ্গামাটি প্রতিনিধি:
রোববার সকাল ১১টায় বিশ্ব ব্যাংক, বাংলাদেশ এর একটি প্রতিনিধিদল রাঙ্গামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদ চেয়ারম্যানের সঙ্গে তার অফিসকক্ষে সাক্ষাৎ করেন।

সাক্ষাৎকালে প্রতিনিধিদল জানান, বাংলাদেশে অবস্থিত বিশ^ ব্যাংক ভূমি অধিগ্রহণ এবং পুনর্বাসন বিষয়ে একটি স্টাডি করার উদ্যোগ নিয়েছে। এই স্টাডির মাধ্যমে বাংলাদেশে ভূমি অধিগ্রহণ এবং ভূমি অধিগ্রহণের ফলে ক্ষতিগ্রস্তদের পুনর্বাসনে প্রতিবন্ধকতা এবং চ্যালেঞ্জগুলো অনুসন্ধানপূর্বক সম্ভাব্য প্রতিকারমূলক ব্যবস্থা বিষয়ে পরামর্শ প্রদান করা হবে। এই স্টাডিতে পার্বত্য চট্টগ্রামের ভূমি এবং ভূমি অধিগ্রহণ বিষয়টিও সংযুক্ত থাকায় পরিষদের সঙ্গে তাদের এ সাক্ষাৎ।

চেয়ারম্যান বৃষ কেতু চাকমা প্রতিনিধিদলকে স্বাগত জানিয়ে বলেন, পার্বত্য চট্টগ্রামের অন্যতম সমস্যা ভূমি বিষয়ক সমস্যা। এ সমস্যার কারণে সরকার ভূমি কমিশন গঠন করেছে এবং এর মাধ্যমে ভূমি সমস্যা সমাধানের চেষ্টা করছে। তিনি আরও বলেন, পার্বত্য জেলা পরিষদ আইন অনুযায়ী ভূমি ব্যবস্থাপনা পরিষদে হস্তান্তর করার কথা থাকলেও এখনও পরিষদের কাছে তা হস্তান্তর করা হয়নি। আইন অনুযায়ী ভূমি সংক্রান্ত যেকোন বিষয়ে পরিষদের পূর্বানুমোদনের বাধ্যবাধকতা থাকলেও ভূমি অধিগ্রহণে এ পর্যন্ত কোন কর্তৃপক্ষ পূর্বানুমোদন নেয়নি। তিনি এজন্যে প্রশাসনিক সমন্বয়হীনতাকে দায়ী করেন। তিনি আশা প্রকাশ করেন আইন অনুযায়ী ভূমি বিষয়টি পরিষদে হস্তান্তর করা হলে এ সমস্যা আর থাকবেনা।

প্রতিনিধিদলে ছিলেন অবসরপ্রাপ্ত অতিরিক্ত সচিব ড. মোহাম্মদ আলী খান, অবসরপ্রাপ্ত অতিরিক্ত সচিব মোহাম্মদ ইকবাল, বিশ^ ব্যাংকের কনসালট্যান্ট মোঃ আকতার হোসাইন, ঢাকা বিশ^বিদ্যালয়ের ভূগোল এবং পরিবেশ বিভাগের অধ্যাপিকা হাফিজা খাতুন এবং বিশ^ ব্যাংকের সোশাল ডেভেলাপমেন্ট স্পেশালিস্ট কীর্তি নিশান চাকমা। পরিষদের পক্ষে উপস্থিত ছিলেন মুখ্য নির্বাহী কর্মকর্তা ছাদেক আহমদ এবং জনসংযোগ কর্মকর্তা অরুনেন্দু ত্রিপুরা।

আপনার মন্তব্য লিখুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষণ করুন

প্রকাশক ও সম্পাদক সম্পর্কে-

শফিকুল আলম শাহীন

আমি একজন ওয়েব ডেভেলপার ও সাংবাদিক। আমি দৈনিক ইত্তেফাক পত্রিকায় পূর্বধলা উপজেলা সংবাদদাতা হিসেবে কর্মরত । সেইসাথে পূর্বকণ্ঠ অনলাইন প্রকাশনার সম্পাদক ও প্রকাশক। আমার বর্তমান ঠিকানা স্টেশন রোড, পূর্বধলা, নেত্রকোনা। আমি জীবনের প্রতিটি ক্ষেত্রে ইতিবাচক। আমার ধর্ম ইসলাম। আমি করতে, দেখতে এবং অভিজ্ঞতা করতে পছন্দ করি এমন অনেক কিছু আছে। আমি আইটি সেক্টর নিয়ে বিভিন্ন এক্সপেরিমেন্ট করতে পছন্দ করি। যেমন ওয়েব পেজ তৈরি করা, বিভিন্ন অ্যাপ তৈরি করা, রেডিও স্টেশন তৈরি করা, অনলাইন সংবাদপত্র তৈরি করা ইত্যাদি। আমার সম্পাদনায় প্রকাশিত পূর্বকন্ঠ পত্রিকাটি স্বাধীনতার চেতনায় একটি নিরপেক্ষ জাতীয় অনলাইন । পাঠক আমাদের সবচেয়ে বড় অনুপ্রেরনা। পূর্বকণ্ঠ কথা বলে বাঙালির আত্মপ্রত্যয়ী আহ্বান ও ত্যাগে অর্জিত স্বাধীনতার। কথা বলে স্বাধীনতার চেতনায় উদ্বুদ্ধ হতে। ছড়িয়ে দিতে এ চেতনা দেশের প্রত্যেক কোণে কোণে। আমরা রাষ্ট্রের আইন কানুন, রীতিনীতির প্রতি শ্রদ্ধাশীল। দেশপ্রেম ও রাষ্ট্রীয় আইন বিরোধী এবং বাঙ্গালীর আবহমান কালের সামাজিক সহনশীলতার বিপক্ষে পূর্বকন্ঠ কখনো সংবাদ প্রকাশ করে না। আমরা সকল ধর্মমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল, কোন ধর্মমত বা তাদের অনুসারীদের অনুভূতিতে আঘাত দিয়ে আমরা কিছু প্রকাশ করি না। আমাদের সকল প্রচেষ্টা পাঠকের সংবাদ চাহিদাকে কেন্দ্র করে। তাই পাঠকের যে কোনো মতামত আমরা সাদরে গ্রহন করব। প্রয়োজনে: ০১৭১৩৫৭৩৫০২

রাঙ্গামাটি জেলা পরিষদ চেয়ারম্যানের সঙ্গে বিশ্ব ব্যাংকের টিমের সদস্যদের সাক্ষাৎ

আপডেট : ০৭:২০:১৭ অপরাহ্ন, সোমবার, ১৭ ফেব্রুয়ারী ২০২০

মহুয়া জান্নাত মনি.রাঙ্গামাটি প্রতিনিধি:
রোববার সকাল ১১টায় বিশ্ব ব্যাংক, বাংলাদেশ এর একটি প্রতিনিধিদল রাঙ্গামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদ চেয়ারম্যানের সঙ্গে তার অফিসকক্ষে সাক্ষাৎ করেন।

সাক্ষাৎকালে প্রতিনিধিদল জানান, বাংলাদেশে অবস্থিত বিশ^ ব্যাংক ভূমি অধিগ্রহণ এবং পুনর্বাসন বিষয়ে একটি স্টাডি করার উদ্যোগ নিয়েছে। এই স্টাডির মাধ্যমে বাংলাদেশে ভূমি অধিগ্রহণ এবং ভূমি অধিগ্রহণের ফলে ক্ষতিগ্রস্তদের পুনর্বাসনে প্রতিবন্ধকতা এবং চ্যালেঞ্জগুলো অনুসন্ধানপূর্বক সম্ভাব্য প্রতিকারমূলক ব্যবস্থা বিষয়ে পরামর্শ প্রদান করা হবে। এই স্টাডিতে পার্বত্য চট্টগ্রামের ভূমি এবং ভূমি অধিগ্রহণ বিষয়টিও সংযুক্ত থাকায় পরিষদের সঙ্গে তাদের এ সাক্ষাৎ।

চেয়ারম্যান বৃষ কেতু চাকমা প্রতিনিধিদলকে স্বাগত জানিয়ে বলেন, পার্বত্য চট্টগ্রামের অন্যতম সমস্যা ভূমি বিষয়ক সমস্যা। এ সমস্যার কারণে সরকার ভূমি কমিশন গঠন করেছে এবং এর মাধ্যমে ভূমি সমস্যা সমাধানের চেষ্টা করছে। তিনি আরও বলেন, পার্বত্য জেলা পরিষদ আইন অনুযায়ী ভূমি ব্যবস্থাপনা পরিষদে হস্তান্তর করার কথা থাকলেও এখনও পরিষদের কাছে তা হস্তান্তর করা হয়নি। আইন অনুযায়ী ভূমি সংক্রান্ত যেকোন বিষয়ে পরিষদের পূর্বানুমোদনের বাধ্যবাধকতা থাকলেও ভূমি অধিগ্রহণে এ পর্যন্ত কোন কর্তৃপক্ষ পূর্বানুমোদন নেয়নি। তিনি এজন্যে প্রশাসনিক সমন্বয়হীনতাকে দায়ী করেন। তিনি আশা প্রকাশ করেন আইন অনুযায়ী ভূমি বিষয়টি পরিষদে হস্তান্তর করা হলে এ সমস্যা আর থাকবেনা।

প্রতিনিধিদলে ছিলেন অবসরপ্রাপ্ত অতিরিক্ত সচিব ড. মোহাম্মদ আলী খান, অবসরপ্রাপ্ত অতিরিক্ত সচিব মোহাম্মদ ইকবাল, বিশ^ ব্যাংকের কনসালট্যান্ট মোঃ আকতার হোসাইন, ঢাকা বিশ^বিদ্যালয়ের ভূগোল এবং পরিবেশ বিভাগের অধ্যাপিকা হাফিজা খাতুন এবং বিশ^ ব্যাংকের সোশাল ডেভেলাপমেন্ট স্পেশালিস্ট কীর্তি নিশান চাকমা। পরিষদের পক্ষে উপস্থিত ছিলেন মুখ্য নির্বাহী কর্মকর্তা ছাদেক আহমদ এবং জনসংযোগ কর্মকর্তা অরুনেন্দু ত্রিপুরা।