বুধবার ২৭শে অক্টোবর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ১১ই কার্তিক, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

যে কারণে গণস্বাস্থ্যের কিট কার্যকর নয় বলছে বিএসএমএমইউ

নিজস্ব প্রতিবেদক:  |  আপডেট ২:৫৭ অপরাহ্ণ | বুধবার, ১৭ জুন ২০২০ | প্রিন্ট  | 133

যে কারণে গণস্বাস্থ্যের কিট কার্যকর নয় বলছে বিএসএমএমইউ

করোনাভাইরাস শনাক্ত করার লক্ষ‌্যে গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের উদ্ভাবিত কিটের প্রতিবেদন জমা দিয়েছে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক‌্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) কার্যকারিতা যাচাই কমিটি।

বুধবার (১৭ জুন) এ প্রতিবেদন জমা দেওয়া হয়। পরে এ নিয়ে দুপুরে সংবাদ সম্মেলন করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ডা. কনক কান্তি বড়ুয়া।


সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, ‘দ্রুত করোনাভাইরাস শনাক্ত করার লক্ষে গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের উদ্ভাবিত কিট কার্যকর নয়।’

বিএসএমএমইউ কর্তৃক গণস্বাস্থ্য ফার্মাসিউটিক্যাল প্রদত্ব GR COVID-19 rapid dot blot immunoassay kit মূল্যায়ন  রিপোর্টে বলা হয়েছে, গত ৮ মার্চ বাংলাদেশে প্রথম কোভিড-১৯ রোগী শনাক্ত হয়। বর্তমানে আমাদের দেশে করোনা রোগীর সংখ্যা ৯০,০০০ এর বেশি। করোনা রোগী শনাক্তকরণে প্রচলিত RT PCR পরীক্ষা এ পর্যন্ত ব্যবহার করে আসলেও অ‌্যান্টিজেন-অ‌্যান্টিবডিভিত্তিক টেস্টিং একটি সময়ের দাবি। এ পরিপ্রেক্ষিতে সরকারের ডিরেক্টরেট জেনারেল অব ড্রাগ অ‌্যাডমিনিস্ট্রেশন (DGDA) গত ২৯ এপ্রিল বিএসএমএমইউ প্রশাসনকে গণস্বাস্থ্য ফার্মাসিউটিক্যাল কর্তৃক প্রদত্ব GR COVID-19 rapid dot blot immunoassay কিটের একটি বিজ্ঞানসম্মত মূল্যায়নের অনুরোধ করে বিএসএমএমইউকে Contract Research Organization (CRO) হিসেবে নিয়োগ করেন। বিএসএমএমইউ কর্তৃপক্ষ সেই উপলক্ষে ২ মে এ বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাইরোলজি বিভাগের অধ্যাপক ডা.  শাহীনা তাবাসসুমের নেতৃত্বে ছয় সদস্য বিশিষ্ট একটি গবেষণা দল তৈরি করেন।

গবেষণা দল এ প্রেক্ষিতে ‘Evaluation of GRCOVID-19 Rapid Antibody Dot Test and GR COVID-19 Rapid Antigen Dot Test for detection of SARS-CoV-2’ শিরোনামে একটি গবেষণা প্রকল্প প্রস্তুাবনা ১৩ মে বিশ্ববিদ্যালয়ের Institutional Review Board (IRB) কর্তৃক অনুমোদনপ্রাপ্ত হয়ে গবেষণা কার্যক্রম শুরু করেন।

মূল্যায়ন রিপোর্টে বলা হয়, ডিরেক্টরেট জেনারেল অব ড্রাগ অ‌্যাডমিনিস্ট্রেশন বিএসএমএমইউ কর্তৃপক্ষকে এক বছর সময় দিলেও বাস্তবতার নিরিখে ও দেশের ক্রান্তিকালকে বিবেচনায় রেখে গবেষণা দল এক মাসের মধ্যে গবেষণা সম্পাদনের লক্ষ্য সামনে নিয়ে তাদের কার্যক্রম শুরু করেন। মোট ৫০৯টি রক্ত স্যাম্পল পরীক্ষার মাধ্যমে এক মাস সময়ের মধ্যেই গবেষণা পরীক্ষা কার্যক্রম শেষ হয় এবং পরিসংখ্যান কার্যক্রমের জন্য আরও এক সপ্তাহ ব্যয় হয়। এক্ষেত্রে উল্লেখ‌্য, গণস্বাস্থ্য ফার্মাসিউটিক্যাল ১২ মে প্রথম ২০০ অ‌্যান্টিবডি পরীক্ষা কিট গবেষণা দলকে দেন।

প্রাথমিক পর্যায়ে শুধু রক্ত পরীক্ষার মাধ্যমে গবেষণা করার লক্ষ্য থাকলেও বিগত ১৯ মে গণস্বাস্থ্য ফার্মাসিউটিক্যাল রক্তের পরিবর্তে রোগীর লালা সংগ্রহের অনুরোধ জানান এবং গবেষণা দল সেই প্রেক্ষিতে গবেষণা প্রস্তাবনা পরিবর্তন করার আবেদন জানান এবং IRB, BSMMU ২৩ মে পরিবর্তিত প্রস্তাবনা অনুমোদন করেন। পরবর্তিতে লালাতে পরিক্ষার ফলাফল আশানুরুপ হয়নি—এই মর্মে গণস্বাস্থ্য ফার্মাসিউটিক্যাল বিএসএমএমইউ গবেষণা দলকে লালায় অ‌্যান্টিজেন পরীক্ষা সাময়িক স্থগিত রাখার অনুরোধ করেন এবং শুধুমাত্র অ‌্যান্টিবডি কিটের গবেষণা চালু রাখার অনুরোধ জানান।

গণস্বাস্থ্য ফার্মাসিউটিক্যাল কর্তৃক বারবার সিদ্ধান্ত পরিবর্তনের কারণে গবেষণা কার্যক্রম সম্পাদন বিলম্বিত হয়। কিন্তু গবেষণা টিম অত্যন্ত নিষ্ঠার সাথে পরিশ্রম করে এক মাসের মধ্যেই তাদের কার্যক্রম শেষ করেন এবং রিপোর্ট তৈরি করেন।

গবেষণা টিম চূড়ান্ত যেসব সুপারিশ করেন-

১। এই কিটটি উপসর্গ নিয়ে আসা রোগীদের শনাক্তকরণে কার্যকরি নয়। উপসর্গের প্রথম দুই সপ্তাহে এই কিট ব্যবহার করে শুধুমাত্র ১১-৪০% রোগীর রোগ শনাক্তকরণ সম্ভব। তবে যে সমস্ত স্থানে প্রচলিত RT PCR পদ্ধতি চালু নেই অথবা যাদের কোভিড উপসর্গ থাকা সত্বেও RT PCR নেগেটিভ এসেছে, তাদের ক্ষেত্রে এই কিট কিছুটা সহায়ক হিসেবে ব্যবহৃত হতে পারে।

২। এই কিট কোভিড রোগের ব্যাপ্তি বা seroprevalence দেখার কাজে ব্যবহার করা যেতে পারে। সেক্ষেত্রে এই কিটের মাধ্যমে ৭০% রোগী যাদের ইতিপূর্বে কোভিড রোগ হয়েছিলো তাদের শনাক্তকরণ সম্ভব।

৩। গণস্বাস্থ্য ফার্মাসিউটিক্যাল কর্তৃক প্রদত্ত কিট অ‌্যান্টিবডি শনাক্ত করতে পারলেও IgM (যা ইনফেকশনের শুরুতেই তৈরি হয়) এবং IgG (ইনফেকশনের বিলম্বিত পর্যায়ে তৈরি হয়)তা আলাদাভাবে পার্থক্য করতে পারে না।

সাওন/সাইফ

 

শেয়ার করুন..

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

এক ক্লিকে বিভাগের খবর

আর্কাইভ

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০১১১২১৩১৪১৫
১৬১৭১৮১৯২০২১২২
২৩২৪২৫২৬২৭২৮২৯
৩০৩১  
ঘোষনা : আমাদের পূর্বকন্ঠ ওয়েবসাইটে প্রবেশ করার জন্য আপনাকে স্বাগতম। আপনার আশপাশে ঘটে যাওয়া খবরা খবর জানাতে আমাদের ফোন করুন-০১৭১৩৫৭৩৫০২ এই নাম্বারে ☎ গুরুত্বপূর্ণ নাম্বার সমূহ : ☎ জরুরী সেবা : ৯৯৯ ☎ নেত্রকোনা ফায়ার স্টেশন: ০১৭৮৯৭৪৪২১২☎ জেলা প্রশাসক ,নেত্রকোনা:০১৩১৮-২৫১৪০১ ☎ পুলিশ সুপার,নেত্রকোনা: ০১৩২০১০৪১০০☎ অতিরিক্ত পুলিশ সুপার, সদর সার্কেল : ০১৩২০১০৪১৪৫ ☎ ইউএনও,পূর্বধলা : ০১৭৯৩৭৬২১০৮☎ ওসি পূর্বধলা : ০১৩২০১০৪৩১৫ ☎ শ্যামগঞ্জ পুলিশ তদন্ত কেন্দ্র : ০১৩২০১০৪৩৩৩ ☎ ওসি শ্যামগঞ্জ হাইওয়ে থানা : ০১৩২০১৮২৮২৬ ☎ উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা, পূর্বধলা: ০১৭০০৭১৭২১২/০৯৫৩২৫৬১০৬ ☎ উপজেলা সমাজসেবা অফিসার, পূর্বধলা : ০১৭১৮৩৮৭৫৮৭/০১৭০৮৪১৫০২২ ☎ উপজেলা মৎস্য অফিসার, পূর্বধলা : ০১৫১৫-৬১৪৯২১ ☎ উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা, পূর্বধলা : ০১৯৯০-৭০৩০২০ ☎ উপজেলা প্রাণি সম্পদ অফিসার, পূর্বধলা : ০১৭১৮-৭২৮২৯৪ ☎ উপজেলা প্রকৌশলী (এলজিইডি) পূর্বধলা :০১৭০৮-১৬১৪৫৭ ☎ উপজেলা আনসার ভিডিপি অফিসার, পূর্বধলা : ০১৯১৪-৯১৯৯৩৮ ☎ উপ-সহকারি প্রকৌশলী, জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অফিস, পূর্বধলা : ০১৯১৬-৮২৬৬৬৮ ☎ উপজেলা যুব উন্নয়ন অফিসার, পূর্বধলা : ০১৭১১-৭৮৯৭৯৮ ☎ উপজেলা কৃষি অফিসার, পূর্বধলা : ০১৭১৬-৭৯৮৯৪৬ ☎ উপজেলা শিক্ষা অফিসার, পূর্বধলা : ০১৭১৫-৪৭৪২৯৬ ☎ উপজেলা সমবায় অফিসার, পূর্বধলা : ০১৭১৭-০৪৩৬৩৯ ☎ সম্পাদক পূর্বকন্ঠ ☎ ০১৭১৩৫৭৩৫০২ ☎
মোঃ শফিকুল আলম শাহীন সম্পাদক ও প্রকাশক
পূর্বকণ্ঠ ২০১৬ সালে তথ্য অধিদপ্তরে নিবন্ধনের জন্য আবেদিত।
বার্তা ও সম্পাদকীয় কার্যালয়

স্টেশন রোড, পূর্বধলা, নেত্রকোনা।

হেল্প লাইনঃ +৮৮০৯৬৯৬৭৭৩৫০২

E-mail: info@purbakantho.com