নেত্রকোনা ১২:২৭ অপরাহ্ন, শনিবার, ২৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১২ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

নবাবগঞ্জে ফুলে ফুলে ভরে গেছে সরিষা ক্ষেত

দিনাজপুরের নবাবগঞ্জে সরিষার হলুদ ফুলে ছেয়ে গেছে দিগন্ত  জোড়া ফসলের মাঠ। পৌষের হিমেল বাতাসে দোল খাচ্ছে হলুদ সরিষার ফুল। সরিষা ফুলের হলুদ রাজ্যে মৌমাছির গুঞ্জনে মুখরিত যেমন মাঠ, তেমনি বাম্পার ফলনের হাতছানিতে কৃষকের চোখেমুখে ফুটে উঠেছে আনন্দের হাসি।
যেন সরিষার হলুদ হাসিতে স্বপ্ন দেখছে কৃষক। দেশের অন্যতম একটি তৈল জাতীয় খাদ্যের নাম সরিষা। চলতি মৌসুমে দিনাজপুরে নবাবগঞ্জ উপজেলায়  উন্নত জাতের সরিষা চাষ হয়েছে। বেড়ে উঠা গাছ আর ফুল দেখে অধিক ফলনের স্বপ্ন দেখছেন এ উপজেলার কৃষকরা। মাঠে মাঠে  বির্স্তীন    এলাকায় দৃষ্টি জুড়ে শুধুই হলুদের সমারোহ।
ফুলে ফুলে ভরে গেছে সরিষা ক্ষেত। সরিষার মাঠে ইতোমধ্যে দেখা মিলছে মৌমাছির মধু আহরণের দৃশ্য। গত বছর স্থানীয় বাজারে উন্নত জাতের সরিষার দাম ভাল পাওয়ায় কৃষকরা এবারও সরিষা চাষে অধিক আগ্রহী হয়ে পড়েছে। আবহাওয়া অনুকূলে থাকলে গত বছরের তুলনায় এ বছর   প্রত্যেক সরিষা চাষী অধিক মুনাফা লাভ করবে বলে মনে করছে উপজেলা কৃষি বিভাগ।
উপজেলার হেয়াতপুর  গ্রামের সরিষা চাষী  আঃ সালাম   জানান, এ বছর ৩ বিঘা জমিতে সরিষার আবাদ করেছি।  সরিষার গাছ ভাল হয়েছে। আশা করছি বাম্পার ফলন হবে। আমি কয়েক বছর থেকে সরিষা চাষ করছি , সরিষার জমিতে ধানের আবাদও ভাল হয় এবং বোরো চাষে খরচ কম হয়।
দাউদপুর গ্রামের মোঃ ইউনুছ আলী  জানান, এই বছর প্রথম সরিষা চাষ শুরু করেছি । এবার আমি ৩ বিঘা জমিতে সরিষা চাষ করেছি  আশা করছি ভালো ফলন হবে ।
নবাবগঞ্জ  উপজেলা উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা মোঃ আমিরুল ইসলাম জানান  নবাবগঞ্জ উপজেলা সরিষা চাষের জন্য খুবই উপযোগী। চলতি মৌসুমে উপজেলার ৯টি ইউনিয়নে  ৯’শ ৮৭ হেক্টর জমিতে সরিষা চাষের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়। সরিষা চাষের জন্য এ মৌসুমে ৪‘শ ৫০ জন কৃষক কে সরিষা চাষে প্রণোদনা দেওয়া হয়েছে । প্রাকৃতিক দুর্যোগ না হলে সরিষার ভালো ফলনের আশা করা যাচ্ছে।

আপনার মন্তব্য লিখুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষণ করুন

প্রকাশক ও সম্পাদক সম্পর্কে-

শফিকুল আলম শাহীন

আমি একজন ওয়েব ডেভেলপার ও সাংবাদিক। আমি দৈনিক ইত্তেফাক পত্রিকায় পূর্বধলা উপজেলা সংবাদদাতা হিসেবে কর্মরত । সেইসাথে পূর্বকণ্ঠ অনলাইন প্রকাশনার সম্পাদক ও প্রকাশক। আমার বর্তমান ঠিকানা স্টেশন রোড, পূর্বধলা, নেত্রকোনা। আমি জীবনের প্রতিটি ক্ষেত্রে ইতিবাচক। আমার ধর্ম ইসলাম। আমি করতে, দেখতে এবং অভিজ্ঞতা করতে পছন্দ করি এমন অনেক কিছু আছে। আমি আইটি সেক্টর নিয়ে বিভিন্ন এক্সপেরিমেন্ট করতে পছন্দ করি। যেমন ওয়েব পেজ তৈরি করা, বিভিন্ন অ্যাপ তৈরি করা, রেডিও স্টেশন তৈরি করা, অনলাইন সংবাদপত্র তৈরি করা ইত্যাদি। প্রয়োজনে: ০১৭১৩৫৭৩৫০২

নবাবগঞ্জে ফুলে ফুলে ভরে গেছে সরিষা ক্ষেত

আপডেট : ১০:০১:০৭ অপরাহ্ন, সোমবার, ১৩ জানুয়ারী ২০২০
দিনাজপুরের নবাবগঞ্জে সরিষার হলুদ ফুলে ছেয়ে গেছে দিগন্ত  জোড়া ফসলের মাঠ। পৌষের হিমেল বাতাসে দোল খাচ্ছে হলুদ সরিষার ফুল। সরিষা ফুলের হলুদ রাজ্যে মৌমাছির গুঞ্জনে মুখরিত যেমন মাঠ, তেমনি বাম্পার ফলনের হাতছানিতে কৃষকের চোখেমুখে ফুটে উঠেছে আনন্দের হাসি।
যেন সরিষার হলুদ হাসিতে স্বপ্ন দেখছে কৃষক। দেশের অন্যতম একটি তৈল জাতীয় খাদ্যের নাম সরিষা। চলতি মৌসুমে দিনাজপুরে নবাবগঞ্জ উপজেলায়  উন্নত জাতের সরিষা চাষ হয়েছে। বেড়ে উঠা গাছ আর ফুল দেখে অধিক ফলনের স্বপ্ন দেখছেন এ উপজেলার কৃষকরা। মাঠে মাঠে  বির্স্তীন    এলাকায় দৃষ্টি জুড়ে শুধুই হলুদের সমারোহ।
ফুলে ফুলে ভরে গেছে সরিষা ক্ষেত। সরিষার মাঠে ইতোমধ্যে দেখা মিলছে মৌমাছির মধু আহরণের দৃশ্য। গত বছর স্থানীয় বাজারে উন্নত জাতের সরিষার দাম ভাল পাওয়ায় কৃষকরা এবারও সরিষা চাষে অধিক আগ্রহী হয়ে পড়েছে। আবহাওয়া অনুকূলে থাকলে গত বছরের তুলনায় এ বছর   প্রত্যেক সরিষা চাষী অধিক মুনাফা লাভ করবে বলে মনে করছে উপজেলা কৃষি বিভাগ।
উপজেলার হেয়াতপুর  গ্রামের সরিষা চাষী  আঃ সালাম   জানান, এ বছর ৩ বিঘা জমিতে সরিষার আবাদ করেছি।  সরিষার গাছ ভাল হয়েছে। আশা করছি বাম্পার ফলন হবে। আমি কয়েক বছর থেকে সরিষা চাষ করছি , সরিষার জমিতে ধানের আবাদও ভাল হয় এবং বোরো চাষে খরচ কম হয়।
দাউদপুর গ্রামের মোঃ ইউনুছ আলী  জানান, এই বছর প্রথম সরিষা চাষ শুরু করেছি । এবার আমি ৩ বিঘা জমিতে সরিষা চাষ করেছি  আশা করছি ভালো ফলন হবে ।
নবাবগঞ্জ  উপজেলা উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা মোঃ আমিরুল ইসলাম জানান  নবাবগঞ্জ উপজেলা সরিষা চাষের জন্য খুবই উপযোগী। চলতি মৌসুমে উপজেলার ৯টি ইউনিয়নে  ৯’শ ৮৭ হেক্টর জমিতে সরিষা চাষের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়। সরিষা চাষের জন্য এ মৌসুমে ৪‘শ ৫০ জন কৃষক কে সরিষা চাষে প্রণোদনা দেওয়া হয়েছে । প্রাকৃতিক দুর্যোগ না হলে সরিষার ভালো ফলনের আশা করা যাচ্ছে।