নেত্রকোনা ০৭:২৭ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১৪ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

দুর্গাপুরে দুই পক্ষের সংঘর্ঘে নিহত ১, আহত ১৪

নেত্রকোনার দুর্গাপুরে প্রতিপক্ষের হামলায় মজিবুর রহমান (৫৫) ওরফে ‘দাও’ মজিবুর নামের এক আওয়ামী লীগ কর্মী নিহত ও উভয় পক্ষে ১৪ জন আহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। হত্যাকান্ডের ঘটনাটি ঘটেছে, রবিবার দুপুরে নেত্রকোনা জেলার দুর্গাপুর পৌরসভার দক্ষিণ ভবানীপুর এলাকায়।

স্থানীয় এলাকাবাসী ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, কুল্লাগড়া ইউপি চেয়ারম্যান বিএনপি নেতা আব্দুল আওয়ালের ছেলে আবির (১৯) এর সাথে তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে রবিবার সকালে সুসং সরকারি কলেজ ক্যাম্পাসে আওয়ামীলীগ নেতা মজিবুর রহমানের ভাতিজা খায়রুল ইসলামের (২০) মারামারি হয়। এরই জের ধরে আব্দুল আওয়ালের ছোট ভাই শুটার শামীমের নেতৃত্বে শতাধিক লোকজন দেশীয় অস্ত্রেশস্ত্রে সজ্জ্বিত হয়ে দুপুরে দক্ষিণ ভবানীপুর এলাকায় মজিবুর রহমান ওরফে দাও মজিবুর ও তার লোকজনের ওপর হামলা করলে দুইপক্ষের মাঝে ব্যাপক সংঘর্য হয়। সংঘর্ষে ১৫ জন আহত হয়।,

স্থানীয় লোকজন আশংকাজনক অবস্থায় গুরুতর আহত মজিবুর রহমানকে দুর্গাপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে এলে হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত্যু ঘোষনা করেন। অপরদিকে গুরুতর আহত আব্দুর রশিদ (৪৫) ও মুকসেদুর রহমানকে (৪৫) উন্নত চিকিৎসার জন্য ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়। এ ঘটনায় আহত হয়ে দুর্গাপুর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে খাইরুল (২০), ফারুক মিয়া (২৩), নাঈম মিয়া (২০), সাগর (২২) ও বাকী আহতদের প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে ছেড়ে দেয়া হয়।,

এ নিয়ে বিরিশিরি ইউনিয়ন ৮ নং ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের সভাপতি রফিকুল ইসলাম বলেন, নিহত মজিবুর একজন পরীক্ষিত আওয়ামীলীগ কর্মী ছিলেন। এই সন্ত্রাসী বাহিনী এক বছর আগে কুল্লাগড়া ইউপি চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ নেতা উপজাতি সুব্রত সাংমাকেও একই কায়দায় হত্যা করেছে। আজকের এই হত্যাকান্ড বিএনপি‘র চিহ্নিত সন্ত্রাসী আওয়াল বাহিনীর লোকেরাই করেছে, ‘আমি এর দৃষ্টান্ত মুলক বিচার চাই।,

এ বিষয়ে কর্র্তব্যরত চিকিৎসক ডাঃ মোঃ রকিবুল হাসান বলেন, মজিবুর রহমানকে হাসপাতালে মৃত অবস্থায় নিয়ে আসে তার লোকজন। সংঘর্ষে গুরুতর আহত দু‘জনকে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে। হাসপাতালে ৪ জন ভর্তি করে বাকীদের প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে ছেড়ে দেয়া হয়েছে।,

হত্যাকান্ড নিয়ে দুর্গাপুর থানার ওসি (তদন্ত) নুরুল আলমের সাথে যোগাযোগ করলে তিনি ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, প্রতিপক্ষের হামলায় মজিবুর রহমান নামে একজন নিহত হয়েছে। লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য নেত্রকোনা আধুনিক সদর হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে। বিশৃঙ্খলা এড়াতে এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন রয়েছে। এ ঘটনায় মামলা প্রক্রিয়াধীন।,’

আপনার মন্তব্য লিখুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষণ করুন

প্রকাশক ও সম্পাদক সম্পর্কে-

শফিকুল আলম শাহীন

আমি একজন ওয়েব ডেভেলপার ও সাংবাদিক। আমি দৈনিক ইত্তেফাক পত্রিকায় পূর্বধলা উপজেলা সংবাদদাতা হিসেবে কর্মরত । সেইসাথে পূর্বকণ্ঠ অনলাইন প্রকাশনার সম্পাদক ও প্রকাশক। আমার বর্তমান ঠিকানা স্টেশন রোড, পূর্বধলা, নেত্রকোনা। আমি জীবনের প্রতিটি ক্ষেত্রে ইতিবাচক। আমার ধর্ম ইসলাম। আমি করতে, দেখতে এবং অভিজ্ঞতা করতে পছন্দ করি এমন অনেক কিছু আছে। আমি আইটি সেক্টর নিয়ে বিভিন্ন এক্সপেরিমেন্ট করতে পছন্দ করি। যেমন ওয়েব পেজ তৈরি করা, বিভিন্ন অ্যাপ তৈরি করা, রেডিও স্টেশন তৈরি করা, অনলাইন সংবাদপত্র তৈরি করা ইত্যাদি। প্রয়োজনে: ০১৭১৩৫৭৩৫০২

দুর্গাপুরে দুই পক্ষের সংঘর্ঘে নিহত ১, আহত ১৪

আপডেট : ০২:৪০:২১ অপরাহ্ন, রবিবার, ৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

নেত্রকোনার দুর্গাপুরে প্রতিপক্ষের হামলায় মজিবুর রহমান (৫৫) ওরফে ‘দাও’ মজিবুর নামের এক আওয়ামী লীগ কর্মী নিহত ও উভয় পক্ষে ১৪ জন আহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। হত্যাকান্ডের ঘটনাটি ঘটেছে, রবিবার দুপুরে নেত্রকোনা জেলার দুর্গাপুর পৌরসভার দক্ষিণ ভবানীপুর এলাকায়।

স্থানীয় এলাকাবাসী ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, কুল্লাগড়া ইউপি চেয়ারম্যান বিএনপি নেতা আব্দুল আওয়ালের ছেলে আবির (১৯) এর সাথে তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে রবিবার সকালে সুসং সরকারি কলেজ ক্যাম্পাসে আওয়ামীলীগ নেতা মজিবুর রহমানের ভাতিজা খায়রুল ইসলামের (২০) মারামারি হয়। এরই জের ধরে আব্দুল আওয়ালের ছোট ভাই শুটার শামীমের নেতৃত্বে শতাধিক লোকজন দেশীয় অস্ত্রেশস্ত্রে সজ্জ্বিত হয়ে দুপুরে দক্ষিণ ভবানীপুর এলাকায় মজিবুর রহমান ওরফে দাও মজিবুর ও তার লোকজনের ওপর হামলা করলে দুইপক্ষের মাঝে ব্যাপক সংঘর্য হয়। সংঘর্ষে ১৫ জন আহত হয়।,

স্থানীয় লোকজন আশংকাজনক অবস্থায় গুরুতর আহত মজিবুর রহমানকে দুর্গাপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে এলে হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত্যু ঘোষনা করেন। অপরদিকে গুরুতর আহত আব্দুর রশিদ (৪৫) ও মুকসেদুর রহমানকে (৪৫) উন্নত চিকিৎসার জন্য ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়। এ ঘটনায় আহত হয়ে দুর্গাপুর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে খাইরুল (২০), ফারুক মিয়া (২৩), নাঈম মিয়া (২০), সাগর (২২) ও বাকী আহতদের প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে ছেড়ে দেয়া হয়।,

এ নিয়ে বিরিশিরি ইউনিয়ন ৮ নং ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের সভাপতি রফিকুল ইসলাম বলেন, নিহত মজিবুর একজন পরীক্ষিত আওয়ামীলীগ কর্মী ছিলেন। এই সন্ত্রাসী বাহিনী এক বছর আগে কুল্লাগড়া ইউপি চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ নেতা উপজাতি সুব্রত সাংমাকেও একই কায়দায় হত্যা করেছে। আজকের এই হত্যাকান্ড বিএনপি‘র চিহ্নিত সন্ত্রাসী আওয়াল বাহিনীর লোকেরাই করেছে, ‘আমি এর দৃষ্টান্ত মুলক বিচার চাই।,

এ বিষয়ে কর্র্তব্যরত চিকিৎসক ডাঃ মোঃ রকিবুল হাসান বলেন, মজিবুর রহমানকে হাসপাতালে মৃত অবস্থায় নিয়ে আসে তার লোকজন। সংঘর্ষে গুরুতর আহত দু‘জনকে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে। হাসপাতালে ৪ জন ভর্তি করে বাকীদের প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে ছেড়ে দেয়া হয়েছে।,

হত্যাকান্ড নিয়ে দুর্গাপুর থানার ওসি (তদন্ত) নুরুল আলমের সাথে যোগাযোগ করলে তিনি ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, প্রতিপক্ষের হামলায় মজিবুর রহমান নামে একজন নিহত হয়েছে। লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য নেত্রকোনা আধুনিক সদর হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে। বিশৃঙ্খলা এড়াতে এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন রয়েছে। এ ঘটনায় মামলা প্রক্রিয়াধীন।,’