নেত্রকোনা ০৮:০৯ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১৪ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

টাঙ্গাইলের ঐতিহ্যবাহী তারুটিয়া হাট বিলুপ্তির পথে

টাঙ্গাইল সদর উপজেলার করটিয়া ইউনিয়নে অবস্থিত ঐতিহ্যবাহী তারুটিয়া হাটটি সঙ্কুচিত হয়ে বিলুপ্তির পথে ধাবিত হচ্ছে। স্থানীয়রা বলছেন, পাশের বিসিক শিল্পনগরী সম্প্রসারিত করতে গিয়ে দীর্ঘ ৬৫ বছরের পুরনো হাটটি ধ্বংসের দ্বারপ্রান্তে পৌঁছে গেছে।

জানাগেছে, ১৯৫৫সালে এলাকাবাসীর দাবির পরিপ্রেক্ষিতে স্থানীয় দেলোয়ার মহুরি, ইব্রাহিম খান, রশিদ খান, ইয়াছিন হাজী, আব্দুল মন্নান, খালেক খান, কালু খানদের ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় ৯০ শতাংশ ভূমির উপর তারুটিয়া হাট প্রতিষ্ঠা করা হয়। তখন থেকে প্রতি রোববার হাট এবং প্রতিদিন সকাল ও বিকালে বাজার বসে থাকে।

টাঙ্গাইল সদর উপজেলার করটিয়া, ঘারিন্দা ও দেলদুয়ার উপজেলার পাথরাইল ইউনিয়নের প্রায় ৩০টি গ্রামের সাধারণ মানুষ ওই হাটে হরেক রকমের দ্রব্য বেঁচাকেনা করেন। সঙ্কুচিত হতে হতে হাটটি ৯০ শতাংশ থেকে এখন মাত্র ৪০-৪৫শতাংশে এসে পৌঁছেছে। বাজারে বর্তমানে ২৫০টি স্থায়ী দোকান রয়েছে। হাটের দিনে দোকানীরা সড়ক-মহাসড়কেতর পাশে মালামাল নিয়ে বসেন। এতে যানজট সহ চলাফেরায় দুর্ভোগ পোহাতে হয়।

তারুটিয়ার ব্যবসায়ী হামিদ মিয়া, নয়ন খান গনি, আয়নাল হক, শামীম মিয়া, ঠান্ডু মিয়া, মো. ফরিদ হোসেন সহ অনেকেরই দাবি, পাশের বিসিক শিল্প এলাকা সম্প্রসারিত করায় তারুটিয়া হাট ধ্বংসের দিকে ধাবিত হচ্ছে। বিসিকের রুগ্ন দুটি শিল্প কারখানা হাটের জায়গায় বসানো হয়েছে। ফলে হাট সঙ্কুচিত হয়ে গেছে। বিসিক এখন তারুটিয়া হািট ধ্বংস করে শিল্প কারখানা স্থাপন করতে তৎপরতা চালাচ্ছে।

তারুটিয়া বাজার সমিতির সভাপতি মোবারক হোসেন খান ও সাধারণ সম্পাদক মো. রায়হান খান জানান, তারাও বিসিকের উন্নয়নের পাশাপাশি শিল্প কারখানার উন্নয়ন চান। দীর্ঘ দিনের ঐতিহ্যবাহী হাট-বাজার অক্ষুন্ন রেখে আশপাশের জায়গা হুকুম দখল করে বিসিকের সম্প্রসারণ করার দাবি জানান তারা।

আপনার মন্তব্য লিখুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষণ করুন

প্রকাশক ও সম্পাদক সম্পর্কে-

শফিকুল আলম শাহীন

আমি একজন ওয়েব ডেভেলপার ও সাংবাদিক। আমি দৈনিক ইত্তেফাক পত্রিকায় পূর্বধলা উপজেলা সংবাদদাতা হিসেবে কর্মরত । সেইসাথে পূর্বকণ্ঠ অনলাইন প্রকাশনার সম্পাদক ও প্রকাশক। আমার বর্তমান ঠিকানা স্টেশন রোড, পূর্বধলা, নেত্রকোনা। আমি জীবনের প্রতিটি ক্ষেত্রে ইতিবাচক। আমার ধর্ম ইসলাম। আমি করতে, দেখতে এবং অভিজ্ঞতা করতে পছন্দ করি এমন অনেক কিছু আছে। আমি আইটি সেক্টর নিয়ে বিভিন্ন এক্সপেরিমেন্ট করতে পছন্দ করি। যেমন ওয়েব পেজ তৈরি করা, বিভিন্ন অ্যাপ তৈরি করা, রেডিও স্টেশন তৈরি করা, অনলাইন সংবাদপত্র তৈরি করা ইত্যাদি। প্রয়োজনে: ০১৭১৩৫৭৩৫০২

টাঙ্গাইলের ঐতিহ্যবাহী তারুটিয়া হাট বিলুপ্তির পথে

আপডেট : ০৬:১১:৩৫ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৪ জানুয়ারী ২০২০

টাঙ্গাইল সদর উপজেলার করটিয়া ইউনিয়নে অবস্থিত ঐতিহ্যবাহী তারুটিয়া হাটটি সঙ্কুচিত হয়ে বিলুপ্তির পথে ধাবিত হচ্ছে। স্থানীয়রা বলছেন, পাশের বিসিক শিল্পনগরী সম্প্রসারিত করতে গিয়ে দীর্ঘ ৬৫ বছরের পুরনো হাটটি ধ্বংসের দ্বারপ্রান্তে পৌঁছে গেছে।

জানাগেছে, ১৯৫৫সালে এলাকাবাসীর দাবির পরিপ্রেক্ষিতে স্থানীয় দেলোয়ার মহুরি, ইব্রাহিম খান, রশিদ খান, ইয়াছিন হাজী, আব্দুল মন্নান, খালেক খান, কালু খানদের ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় ৯০ শতাংশ ভূমির উপর তারুটিয়া হাট প্রতিষ্ঠা করা হয়। তখন থেকে প্রতি রোববার হাট এবং প্রতিদিন সকাল ও বিকালে বাজার বসে থাকে।

টাঙ্গাইল সদর উপজেলার করটিয়া, ঘারিন্দা ও দেলদুয়ার উপজেলার পাথরাইল ইউনিয়নের প্রায় ৩০টি গ্রামের সাধারণ মানুষ ওই হাটে হরেক রকমের দ্রব্য বেঁচাকেনা করেন। সঙ্কুচিত হতে হতে হাটটি ৯০ শতাংশ থেকে এখন মাত্র ৪০-৪৫শতাংশে এসে পৌঁছেছে। বাজারে বর্তমানে ২৫০টি স্থায়ী দোকান রয়েছে। হাটের দিনে দোকানীরা সড়ক-মহাসড়কেতর পাশে মালামাল নিয়ে বসেন। এতে যানজট সহ চলাফেরায় দুর্ভোগ পোহাতে হয়।

তারুটিয়ার ব্যবসায়ী হামিদ মিয়া, নয়ন খান গনি, আয়নাল হক, শামীম মিয়া, ঠান্ডু মিয়া, মো. ফরিদ হোসেন সহ অনেকেরই দাবি, পাশের বিসিক শিল্প এলাকা সম্প্রসারিত করায় তারুটিয়া হাট ধ্বংসের দিকে ধাবিত হচ্ছে। বিসিকের রুগ্ন দুটি শিল্প কারখানা হাটের জায়গায় বসানো হয়েছে। ফলে হাট সঙ্কুচিত হয়ে গেছে। বিসিক এখন তারুটিয়া হািট ধ্বংস করে শিল্প কারখানা স্থাপন করতে তৎপরতা চালাচ্ছে।

তারুটিয়া বাজার সমিতির সভাপতি মোবারক হোসেন খান ও সাধারণ সম্পাদক মো. রায়হান খান জানান, তারাও বিসিকের উন্নয়নের পাশাপাশি শিল্প কারখানার উন্নয়ন চান। দীর্ঘ দিনের ঐতিহ্যবাহী হাট-বাজার অক্ষুন্ন রেখে আশপাশের জায়গা হুকুম দখল করে বিসিকের সম্প্রসারণ করার দাবি জানান তারা।