নেত্রকোনা ১০:৫৩ অপরাহ্ন, শনিবার, ২৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১২ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

চট্টগ্রামে ১৮ আবাসিক হোটেলের লাইসেন্স বাতিলে চিঠি

  • আপডেট : ০৭:৪১:০৮ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৫ জুলাই ২০২৩
  • ১০৬১ বার পঠিত

পূর্বকন্ঠ ডেস্ক: চট্টগ্রাম নগরীর কোতোয়ালি থানা এলাকায় অসামাজিক কার্যকলাপ ঠেকাতে ১৮ আবাসিক হোটেলের লাইসেন্স বাতিলের আবেদন করেছে পুলিশ। সম্প্রতি কোতোয়ালি থানার ওসি জাহিদুল কবির জেলা প্রশাসক বরাবরে এ সংক্রান্ত চিঠি পাঠান।,

চিঠিতে উল্লেখ করা হয়েছে, ‘আলোচ্য হোটেলগুলোতে প্রায় সময় আবাসিক রুম ভাড়া দেওয়ার আড়ালে অসামাজিক কার্যকলাপ পরিচালিত হয়। এসব হোটেল থেকে বেশ কয়েকবার নারী-পুরুষদের গ্রেফতার করে আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে। হোটেলের মালিক ও ম্যানেজারদের বারবার অসামাজিক কার্যকলাপ থেকে বিরত থাকতে বলা হয়। লাইনেন্সের শর্ত অনুযায়ী আবাসিক হোটেলে সাধারণ বোর্ডারদের কাছে রুম ভাড়া দেওয়ার জন্য নির্দেশ দেওয়া হয়। কিন্তু তারা লাইসেন্সের শর্ত ভঙ্গ করে অসামাজিক কার্যক্রম চালিয়ে আসছে।,

যেসব হোটেলের লাইসেন্স বাতিলের আবেদন করা হয়েছে সেগুলোর মধ্যে রয়েছে-পুরাতন গির্জা সড়কের হোটেল লুসাই ইন, কে সি দে সড়কের হোটেল সাউদিয়া, লালদিঘির পাড় এলাকার হোটেল এস নাইট (সুপার গেস্ট হাউজ), রঙ্গম কনভেনশন হল এলাকার হোটেল ক্যামেলিয়া (হোটেল সম্রাট), ফিরিঙ্গিবাজার ব্রিজঘাট এলাকার হোটেল নেভাল আবাসিক ও হোটেল কর্ণফুলী আবাসিক, নন্দনকানন শিক্ষা অফিসের পাশে হোটেল মুসলিম আবাসিক ও হোটেল বিরাজ, বিআরটিসি এলাকায় হোটেল সিলভার ইন ও হোটেল হিলটাউন আবাসিক, স্টেশন রোডের হোটেল গেইটওয়ে আবাসিক, হোটেল মেট্রো ইন, হোটেল গেস্ট ইন, ইকবাল বোর্ডিং, হোটেল গণি আবাসিক ও হোটেল ঢাকা আবাসিক, জহুর হকার্স মার্কেটের পাশে লয়েল রোডে হোটেল দরবার আবাসিক ও হোটেল আদর আবাসিক।,

কোতোয়ালি থানার ওসি জাহিদুল কবির পূর্বকন্ঠকে বলেন, এসব আবাসিক হোটেল নিয়ে বিরক্ত হয়ে গেছি। জেলা প্রশাসক নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট দিয়ে তদন্ত করে ব্যবস্থা নেবেন বলে প্রত্যাশা করি।,

আপনার মন্তব্য লিখুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষণ করুন

প্রকাশক ও সম্পাদক সম্পর্কে-

শফিকুল আলম শাহীন

আমি একজন ওয়েব ডেভেলপার ও সাংবাদিক। আমি দৈনিক ইত্তেফাক পত্রিকায় পূর্বধলা উপজেলা সংবাদদাতা হিসেবে কর্মরত । সেইসাথে পূর্বকণ্ঠ অনলাইন প্রকাশনার সম্পাদক ও প্রকাশক। আমার বর্তমান ঠিকানা স্টেশন রোড, পূর্বধলা, নেত্রকোনা। আমি জীবনের প্রতিটি ক্ষেত্রে ইতিবাচক। আমার ধর্ম ইসলাম। আমি করতে, দেখতে এবং অভিজ্ঞতা করতে পছন্দ করি এমন অনেক কিছু আছে। আমি আইটি সেক্টর নিয়ে বিভিন্ন এক্সপেরিমেন্ট করতে পছন্দ করি। যেমন ওয়েব পেজ তৈরি করা, বিভিন্ন অ্যাপ তৈরি করা, রেডিও স্টেশন তৈরি করা, অনলাইন সংবাদপত্র তৈরি করা ইত্যাদি। প্রয়োজনে: ০১৭১৩৫৭৩৫০২

চট্টগ্রামে ১৮ আবাসিক হোটেলের লাইসেন্স বাতিলে চিঠি

আপডেট : ০৭:৪১:০৮ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৫ জুলাই ২০২৩

পূর্বকন্ঠ ডেস্ক: চট্টগ্রাম নগরীর কোতোয়ালি থানা এলাকায় অসামাজিক কার্যকলাপ ঠেকাতে ১৮ আবাসিক হোটেলের লাইসেন্স বাতিলের আবেদন করেছে পুলিশ। সম্প্রতি কোতোয়ালি থানার ওসি জাহিদুল কবির জেলা প্রশাসক বরাবরে এ সংক্রান্ত চিঠি পাঠান।,

চিঠিতে উল্লেখ করা হয়েছে, ‘আলোচ্য হোটেলগুলোতে প্রায় সময় আবাসিক রুম ভাড়া দেওয়ার আড়ালে অসামাজিক কার্যকলাপ পরিচালিত হয়। এসব হোটেল থেকে বেশ কয়েকবার নারী-পুরুষদের গ্রেফতার করে আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে। হোটেলের মালিক ও ম্যানেজারদের বারবার অসামাজিক কার্যকলাপ থেকে বিরত থাকতে বলা হয়। লাইনেন্সের শর্ত অনুযায়ী আবাসিক হোটেলে সাধারণ বোর্ডারদের কাছে রুম ভাড়া দেওয়ার জন্য নির্দেশ দেওয়া হয়। কিন্তু তারা লাইসেন্সের শর্ত ভঙ্গ করে অসামাজিক কার্যক্রম চালিয়ে আসছে।,

যেসব হোটেলের লাইসেন্স বাতিলের আবেদন করা হয়েছে সেগুলোর মধ্যে রয়েছে-পুরাতন গির্জা সড়কের হোটেল লুসাই ইন, কে সি দে সড়কের হোটেল সাউদিয়া, লালদিঘির পাড় এলাকার হোটেল এস নাইট (সুপার গেস্ট হাউজ), রঙ্গম কনভেনশন হল এলাকার হোটেল ক্যামেলিয়া (হোটেল সম্রাট), ফিরিঙ্গিবাজার ব্রিজঘাট এলাকার হোটেল নেভাল আবাসিক ও হোটেল কর্ণফুলী আবাসিক, নন্দনকানন শিক্ষা অফিসের পাশে হোটেল মুসলিম আবাসিক ও হোটেল বিরাজ, বিআরটিসি এলাকায় হোটেল সিলভার ইন ও হোটেল হিলটাউন আবাসিক, স্টেশন রোডের হোটেল গেইটওয়ে আবাসিক, হোটেল মেট্রো ইন, হোটেল গেস্ট ইন, ইকবাল বোর্ডিং, হোটেল গণি আবাসিক ও হোটেল ঢাকা আবাসিক, জহুর হকার্স মার্কেটের পাশে লয়েল রোডে হোটেল দরবার আবাসিক ও হোটেল আদর আবাসিক।,

কোতোয়ালি থানার ওসি জাহিদুল কবির পূর্বকন্ঠকে বলেন, এসব আবাসিক হোটেল নিয়ে বিরক্ত হয়ে গেছি। জেলা প্রশাসক নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট দিয়ে তদন্ত করে ব্যবস্থা নেবেন বলে প্রত্যাশা করি।,