রবিবার ১৭ই অক্টোবর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ১লা কার্তিক, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

গ্রাম আদালত আইনটি যুগোপযুগী করে সংশোধন করা এখন সময়ের দাবী

 |  আপডেট ৮:২৩ অপরাহ্ণ | শনিবার, ১২ অক্টোবর ২০১৯ | প্রিন্ট  | 597

গ্রাম আদালত আইনটি যুগোপযুগী করে সংশোধন করা এখন সময়ের দাবী

নিকোলাস বিশ্বাস : দেশের উচ্চতর আদালতগুলো বিচারাধীন লক্ষ লক্ষ মামলার চাপে ভারাক্রান্ত। এ মতাবস্থায়, প্রান্তিক মানুষের পক্ষে আইনের আশ্রয় লাভ করা খুবই কঠিন হয়ে উঠেছে। প্রতিদিনই উচ্চতর আদালতগুলোতে মামলার অপরিসীম চাপ বাড়ছে। বর্তমানে উচ্চতর আদালতগুলোতে ৩৫ লক্ষাধিক মামলা বিচারাধীন। আজ থেকে উচ্চতর আদালতগুলোতে যদি আর কোন নতুন মামলা দায়ের করা না হয় তবুও আদালতগুলোতে বিচারাধীন মামলাগুলো নিস্পত্তি করতে কয়েক দশক সময় লাগবে। উচ্চতর আদালতগুলোর এই নাজুক পরিস্থিতিতে দেশের প্রতিটি ইউনিয়নের গ্রাম আদালতগুলো স্থানীয়ভাবে আইনি-সেবা নিশ্চিতকরণে ব্যাপক ভূমিকা পালন করতে পারে।

গ্রাম আদালত আইন ২০০৬ অনুযায়ী প্রতিটি ইউনিয়ন পরিষদে গ্রাম আদালত থাকলেও যথাযথ আইন মেনে বিচার-কার্য সর্বত্র পরিচালিত হয় না। আবার যেখানে আইন মেনে বিচারিক কার্যক্রম পরিচালিত হচ্ছে সেখানেও আইনের কিছু দুর্বলতার কারণে গ্রাম আদালতে কাঙ্খিত ফলাফল আসছে না। গ্রাম আদালত আইন ২০০৬ (সংশোধন ২০১৩) -এর দুর্বলতার কিছু দিক নিয়ে এখানে আলোচনা করা হল।


প্রথমতঃ গ্রাম আদালতের আর্থিক এখতিয়ার যা বর্তমানে মাত্র ৭৫,০০০ টাকা অর্থ্যাৎ গ্রাম আদালত ৭৫,০০০ টাকার উপরে কোন রায় দিতে পারবে না। এখনকার বাজার-দর বিবেচনায় গ্রাম আদালতের আর্থিক এখতিয়ার বাড়িয়ে কমপক্ষে ২০০,০০০ টাকা করা দরকার। পর্যবেক্ষণে দেখা গেছে যে, গ্রাম আদালতে জমি-জমা সংক্রান্ত দেওয়ানী মামলাই দায়ের হয় বেশী কিন্তু গ্রাম আদালতের আর্থিক এখতিয়ার কম থাকায় এ মামলাগুলো গ্রাম আদালতে নথিভূক্ত করা যাচ্ছে না। এজন্য সাধারণ মানুষ আইন বহির্ভূত গ্রাম্য-সালিশের দিকেই ঝুকে পড়ছে। আবার আর্থিক সংকটের কারণে তাদের অনেকেই উচ্চতর আদালতে যেতে পারছে না। ফলে সাধারণ মানুষ আইনি সুবিধা হতে বঞ্চিত হচ্ছেন।

দ্বিতীয়তঃ আদালত থেকে মামলার প্রতিপক্ষের প্রতি সমন জারীর পর যদি প্রতিপক্ষ আদালতে না আসে তাহলে মামলার আবেদনকারীকে ডেকে মামলাটি ফেরত দেওয়া ছাড়া গ্রাম আদালতের হাতে আর কিছুই করার নেই। এ ক্ষেত্রে যিনি মামলাটি দায়ের করলেন তিনি আইনের আশ্রয় হতে বঞ্চিত হলেন। গ্রাম আদালত কার্যকর করার স্বার্থে এখানে আদালতের হাতে অবশ্যই কিছু আইনগত করণীয় থাকতে হবে। এ ক্ষেত্রে যা করা যেতে পারে তাহল উক্ত মামলাটি সরাসরি উচ্চতর আদালতে রেফার করার ক্ষমতা গ্রাম আদালতকে দেওয়া যায় যাতে মানুষ গ্রাম আদালতের প্রতি অনুগত হয় এবং আদালতের কাজে সহযোগিতা করে। বিষয়টির গভীরে আরো পর্যালোচনা হতে পারে এবং সম্ভাব্য আরো অপশন নিয়ে ভাবা যায় যাতে গ্রাম আদালত কার্যকরভাবে বিচারিক কার্যক্রম পরিচালনা করতে পারে এবং মানুষের সেবা করতে পারে।

তৃতীয়তঃ মামলার অতি নগন্য ফি। গ্রাম আদালত আইন ২০০৬ (সংশোধন ২০১৩) অনুযায়ী বর্তমানে ফৌজদারী মামলা দায়েরের জন্য ১০ টাকা এবং দেওয়ানী মামলা দায়েরের জন্য ২০ টাকা ফি প্রদানের ব্যবস্থা রয়েছে। আজকাল ১০ টাকা বা ২০ টাকা খুব বেশী কিছু নয়। জেলা পর্যায়ের হোটেলেগুলোতে এখন এক কাপ দুধ চায়ের দামই ১৫ টাকা। সুতরাং এই নগন্য ফিসের পরিমাণের উপর বিচারপ্রার্থীদের আস্থা কতটুকু সৃষ্টি হয় তা নিয়ে প্রশ্ন আছে। অথচ এই সুযোগে কোন কোন গ্রাম আদালতে বিচারপ্রার্থীদের কাছ থেকে নানা অজুহাতে অতিরিক্ত অর্থ আদায় করা হয় যার কোন হিসেব নেই কারণ এগুলো বৈধ নয়। অনেককে বলতেই শোনা যায় যে, মাত্র ১০ টাকা বা ২০ টাকা দিয়ে কি-ইবা বিচার পাবো! এ অবস্থার পরিবর্তনের জন্য গ্রাম আদালতে মামলা দায়েরের ফি কমপক্ষে ২০০ টাকা নির্ধারণ করা দরকার। উপরন্তু জটিলতা কমানোর জন্য উভয় মামলার ক্ষেত্রে (ফৌজদারী ও দেওয়ানী) একই পরিমাণ ফি রাখা উচিৎ। এটা করতে পারলে নানা অজুহাতে অর্থ আদায়ের অবৈধ পন্থাগুলো বন্ধ হবে এবং আদায়কৃত অর্থের সঠিক হিসাব আদালতে সংরক্ষিত থাকবে। এরফলে গ্রাম আদালতে স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা নিশ্চিত হবে।

গ্রাম আদালত সক্রিয়করণের আরেকটি বড় সমস্যা হল পুলিশ থানাগুলোর গোলঘর; কারণ সেখানে গ্রাম আদালতের এখতিয়ারাধীন মামলাগুলো অবলীলায় বিচার-সালিশ হয়ে যাচ্ছে যা কাঙ্খিত নয়। যদি এমন আইন করা হোত যে, থানায় গ্রাম আদালতের কোন মামলা গেলে তারা সেখান থেকে মামলাগুলো সরাসরি গ্রাম আদালতে রেফার করে দিবেন যেভাবে উচ্চ আদালত হতে গ্রাম আদালতে মামলা রেফার করা হয়। এতে নিশ্চিতভাবে গ্রাম আদালত প্রাতিষ্ঠানিক রূপ পাবে এবং এর উপর মানুষের আস্থা বাড়বে।।  

শেয়ার করুন..

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

advertisement
advertisement
advertisement
এক ক্লিকে বিভাগের খবর

আর্কাইভ

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০১১১২১৩১৪১৫
১৬১৭১৮১৯২০২১২২
২৩২৪২৫২৬২৭২৮২৯
৩০৩১  
ঘোষনা : আমাদের পূর্বকন্ঠ ওয়েবসাইটে প্রবেশ করার জন্য আপনাকে স্বাগতম। আপনার আশপাশে ঘটে যাওয়া খবরা খবর জানাতে আমাদের ফোন করুন-০১৭১৩৫৭৩৫০২ এই নাম্বারে ☎ গুরুত্বপূর্ণ নাম্বার সমূহ : ☎ জরুরী সেবা : ৯৯৯ ☎ নেত্রকোনা ফায়ার স্টেশন: ০১৭৮৯৭৪৪২১২☎ জেলা প্রশাসক ,নেত্রকোনা:০১৩১৮-২৫১৪০১ ☎ পুলিশ সুপার,নেত্রকোনা: ০১৩২০১০৪১০০☎ অতিরিক্ত পুলিশ সুপার, সদর সার্কেল : ০১৩২০১০৪১৪৫ ☎ ইউএনও,পূর্বধলা : ০১৭৯৩৭৬২১০৮☎ ওসি পূর্বধলা : ০১৩২০১০৪৩১৫ ☎ শ্যামগঞ্জ পুলিশ তদন্ত কেন্দ্র : ০১৩২০১০৪৩৩৩ ☎ ওসি শ্যামগঞ্জ হাইওয়ে থানা : ০১৩২০১৮২৮২৬ ☎ উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা, পূর্বধলা: ০১৭০০৭১৭২১২/০৯৫৩২৫৬১০৬ ☎ উপজেলা সমাজসেবা অফিসার, পূর্বধলা : ০১৭১৮৩৮৭৫৮৭/০১৭০৮৪১৫০২২ ☎ উপজেলা মৎস্য অফিসার, পূর্বধলা : ০১৫১৫-৬১৪৯২১ ☎ উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা, পূর্বধলা : ০১৯৯০-৭০৩০২০ ☎ উপজেলা প্রাণি সম্পদ অফিসার, পূর্বধলা : ০১৭১৮-৭২৮২৯৪ ☎ উপজেলা প্রকৌশলী (এলজিইডি) পূর্বধলা :০১৭০৮-১৬১৪৫৭ ☎ উপজেলা আনসার ভিডিপি অফিসার, পূর্বধলা : ০১৯১৪-৯১৯৯৩৮ ☎ উপ-সহকারি প্রকৌশলী, জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অফিস, পূর্বধলা : ০১৯১৬-৮২৬৬৬৮ ☎ উপজেলা যুব উন্নয়ন অফিসার, পূর্বধলা : ০১৭১১-৭৮৯৭৯৮ ☎ উপজেলা কৃষি অফিসার, পূর্বধলা : ০১৭১৬-৭৯৮৯৪৬ ☎ উপজেলা শিক্ষা অফিসার, পূর্বধলা : ০১৭১৫-৪৭৪২৯৬ ☎ উপজেলা সমবায় অফিসার, পূর্বধলা : ০১৭১৭-০৪৩৬৩৯ ☎ সম্পাদক পূর্বকন্ঠ ☎ ০১৭১৩৫৭৩৫০২ ☎
মোঃ শফিকুল আলম শাহীন সম্পাদক ও প্রকাশক
পূর্বকণ্ঠ ২০১৬ সালে তথ্য অধিদপ্তরে নিবন্ধনের জন্য আবেদিত।
বার্তা ও সম্পাদকীয় কার্যালয়

স্টেশন রোড, পূর্বধলা, নেত্রকোনা।

হেল্প লাইনঃ +৮৮০৯৬৯৬৭৭৩৫০২

E-mail: info@purbakantho.com