বৃহস্পতিবার ২৮শে অক্টোবর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ১২ই কার্তিক, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

খু..উ..ব..ই দীর্ঘ প্রক্রিয়ার নাম সদ্য সরকারিকৃত কলেজ শিক্ষক

মোঃ এমদাদুল হক :  |  আপডেট ১০:২৬ অপরাহ্ণ | সোমবার, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২১ | প্রিন্ট  | 290

খু..উ..ব..ই দীর্ঘ প্রক্রিয়ার নাম সদ্য সরকারিকৃত কলেজ শিক্ষক

“আলোচ্য বিষয়টি স্হান পেয়েছে মহান জাতীয় সংসদে”। কিশোরগঞ্জ থেকে নির্বাচিত জাতীয় সংসদ সদস্য জনাব মজিবুল হক চুন্নু সদ্য সরকারিকৃত কলেজের শিক্ষকদের আত্তীকরণে বিদ্যমান জটিলতা নিরসনে শিক্ষামন্ত্রীর পদক্ষেপ জানতে প্রশ্ন করলে গর্জে উঠেছিলেন মাননীয় শিক্ষামন্ত্রী ডাঃ দীপু মনি।

তিনি বলেছেন, এটি খু..উ..ব..ই দীর্ঘ এবং জটিল একটি প্রক্রিয়া, আমরা একেবারে না দেখেইতো ছেড়ে দিতে পারছি না, ইত্যাদি। শোভন-অশোভন না বললেও এটিতো বলতেই হবে যে,মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর উপস্থিতিতে শিক্ষামন্ত্রী মহোদয়ের উক্তিটি সরকারের সিদ্ধান্তেরই বহিঃপ্রকাশ। যদি তাই হয়, তাহলে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জাতির উদ্দেশ্যে ভাষণে যেটি বলেছিলেন সেটি কি অপরিনত সিদ্ধান্তে পরিনত হলো না ?


নাহ্, আমরা এটি বিশ্বাস করতে চাই না, কারন অতীতে বিশ্বের অনেক মানবিক সরকার প্রধানের ন্যায় আমাদের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনাকে দেখা গেছে চেয়ার ছেড়ে উঠে যেয়ে উনার শিক্ষককের প্রতি সম্মান দেখিয়েছেন-সাবেক শিক্ষা সচিব জনাব, নজরুল ইসলাম খান উনার শিক্ষককে পা’ছুয়ে সালাম করে সম্মান করেছেন- সড়ক ও সেতু মন্ত্রনালয়ের সচিব জনাব নজরুল ইসলাম বলেছেন, একমাত্র শিক্ষকরাই হেরে যেয়ে গর্বিত হয়।

তাহলে প্রশ্নোত্তর পর্বে মাননীয় শিক্ষামন্ত্রী মহোদয় সদ্য সরকারিকৃত কলেজ শিক্ষকদের আত্তীকরণের বিষয়ে যে সমস্ত বিষয়ের অবতারণা করে দীর্ঘ প্রক্রিয়ার কথা বলেছেন সেটির যৌক্তিকতা নিঃসন্দেহে প্রশ্নবিদ্ধ।এই সমস্ত সরকারিকৃত কলেজ গুলোর সরকারি করনের প্রজ্ঞাপন জারি হয়েছিল ২০১৮সালের ৮ই আগষ্ট। সেই সময় থেকেই সেখানে কর্মরত শিক্ষকদের এমপিও,পদন্নোতি, কলেজ অংশের ভাতাদি সহ অন্যান সকল সুবিধাদি বন্ধ করে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়। এই সু,,দী,,র্ঘ চারটি বৎসরে যতটা বঞ্চনার শিকার হয়েছে সদ্য সরকারিকৃত কলেজ শিক্ষকগণ সেটি হৃদয়ের গভীরতা দিয়ে অনুভব না করে যারা শিক্ষকদের পেশাগত জীবন নিয়ে ব্যঙ্গাত্বক বক্তব্য দিচ্ছেন তারা নিঃসন্দেহে উচ্চবিলাসী জীবনকেই সমর্থন করছেন।

ভেবে দেখা খু,,,উ,,ব,,ই জরুরি যে,-একজন শিক্ষক চার বৎসর চাকুরী করে বেতনই পাচ্ছেন না আর ২৫/৩০বৎসর চাকুরী করেও দীর্ঘ,,, প্রক্রিয়ার যাতাকলে সহকারী অধ্যাপক পদে পদোন্নতি বঞ্চিত হয়ে “প্রভাষক” থেকেই অবসরে যাচ্ছেন।এখানেই শেষ নয় – মধ্যবর্তী সময়ে অবসরে যাওয়া(না সরকারি না বেসরকারি) শিক্ষকগণ কল্যান ও অবসর ভাতা প্রাপ্তিতে নানান বিড়ম্বনার শিকার হচ্ছেন। এটি কি খু,,,উ,,ব,,ই দীর্ঘ প্রক্রিয়ার অমানবিক কার্যক্রমের ফসল নয় কি ?

এটি মনে রাখতে হবে,এই সমস্ত প্রতিষ্টানের শিক্ষকগন কখনোই জাতীয়করণের দাবী উত্থাপন করেনি। বরং সরকার স্বপ্রনোদিত হয়ে জাতির উদ্দেশ্যে ভাষণে প্রতিটি উপজেলায় একটি করে স্কুল এবং একটি করে কলেজ সরকারি করা হয়েছে বলে ঘোষনা করেছেন। কোন কাংখিত অর্জনে শিক্ষা খাতটি যদি বিনিয়োগের উপকরন হয়ে থাকে,আর সেটি যদি জাতীয় স্বার্থকে ত্বরান্বিত করে তবে অবশ্যই সেটি প্রশংসনীয়। তবে অক্ষমতাকে অপবাদ দিয়ে শিক্ষকদের পেশাকে কলংকিত করা কতটুকু শোভন সেটি বিচারের সময়ই হয়তো বলে দিবে।

স্বাধীনতা পরবর্তী সময়ে বঙ্গবন্ধু প্রাথমিক শিক্ষাকে জাতীয় করন করেছিলেন ,এই সরকারের আমলেও ৩৫ হাজার প্রাথমিক শিক্ষককে আত্তীকরণ করা হয়েছে -সেখানেতো এরকম বিতর্ক হয়নি, তাহলে এখানে কেন এমন হলো ? সংসদ হচ্ছে,আইন প্রণয়নের কেন্দ্রবিন্দু, সেখানে নাগরিকের অধিকার সংরক্ষিত হয়।কিন্তু সদ্য সরকারিকৃত কলেজশিক্ষক দের আত্তীকরণে দীর্ঘ সুত্রীতার বক্তব্যটি এক শ্রেনীর মানুষের অধিকারে হস্তক্ষেপের সামিল।

একটি অসাম্প্রদায়িক চেতনায় বাঙ্গালী তার কাংখিত অর্জনে পৌঁছেছিলো সুযোগ্য নেতৃত্বের মাধ্যমে –তাই বৈষম্যহীন সমাজ প্রতিষ্টায় কারো অধিকারে হস্তক্ষেপ না করে সদ্য সরকারি কৃত কলেজশিক্ষকদের আত্তীকরণে যতটা অসঙ্গতি আছে বলে মনে হয় তার সবটুকু দেখেন তাতে যতই দীর্ঘ সূত্রতা হউক না কেন শিক্ষকগণ তা মানতে বাধ্য।

তবে দয়া করে অধিকার হরনকারী যে সমস্ত অসঙ্গতি চালু করেছেন সেগুলো অনতিবিলম্ব রহিত করে বেসরকারি বিধিমালায় বিদ্যমান রীতি অনুযায়ী সদ্যসরকারিকৃত কলেজ শিক্ষকদের এমপিও, পদন্নোতি,এবং কলেজপ্রদত্ত ভাতাদি প্রদানের নির্দেশনা জারি করে বাধিত করুন।সেই সাথে সরকারি করণের সু-দীর্ঘ পথপরিক্রমার অবসানে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ অত্যান্ত জরুরি।

লেখক : মোঃ এমদাদুল হক, প্রভাষক, ইতিহাস বিভাগ,পূর্বধলা সরকারি কলেজ।

শেয়ার করুন..

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

এক ক্লিকে বিভাগের খবর

আর্কাইভ

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০১১১২১৩১৪১৫
১৬১৭১৮১৯২০২১২২
২৩২৪২৫২৬২৭২৮২৯
৩০৩১  
ঘোষনা : আমাদের পূর্বকন্ঠ ওয়েবসাইটে প্রবেশ করার জন্য আপনাকে স্বাগতম। আপনার আশপাশে ঘটে যাওয়া খবরা খবর জানাতে আমাদের ফোন করুন-০১৭১৩৫৭৩৫০২ এই নাম্বারে ☎ গুরুত্বপূর্ণ নাম্বার সমূহ : ☎ জরুরী সেবা : ৯৯৯ ☎ নেত্রকোনা ফায়ার স্টেশন: ০১৭৮৯৭৪৪২১২☎ জেলা প্রশাসক ,নেত্রকোনা:০১৩১৮-২৫১৪০১ ☎ পুলিশ সুপার,নেত্রকোনা: ০১৩২০১০৪১০০☎ অতিরিক্ত পুলিশ সুপার, সদর সার্কেল : ০১৩২০১০৪১৪৫ ☎ ইউএনও,পূর্বধলা : ০১৭৯৩৭৬২১০৮☎ ওসি পূর্বধলা : ০১৩২০১০৪৩১৫ ☎ শ্যামগঞ্জ পুলিশ তদন্ত কেন্দ্র : ০১৩২০১০৪৩৩৩ ☎ ওসি শ্যামগঞ্জ হাইওয়ে থানা : ০১৩২০১৮২৮২৬ ☎ উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা, পূর্বধলা: ০১৭০০৭১৭২১২/০৯৫৩২৫৬১০৬ ☎ উপজেলা সমাজসেবা অফিসার, পূর্বধলা : ০১৭১৮৩৮৭৫৮৭/০১৭০৮৪১৫০২২ ☎ উপজেলা মৎস্য অফিসার, পূর্বধলা : ০১৫১৫-৬১৪৯২১ ☎ উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা, পূর্বধলা : ০১৯৯০-৭০৩০২০ ☎ উপজেলা প্রাণি সম্পদ অফিসার, পূর্বধলা : ০১৭১৮-৭২৮২৯৪ ☎ উপজেলা প্রকৌশলী (এলজিইডি) পূর্বধলা :০১৭০৮-১৬১৪৫৭ ☎ উপজেলা আনসার ভিডিপি অফিসার, পূর্বধলা : ০১৯১৪-৯১৯৯৩৮ ☎ উপ-সহকারি প্রকৌশলী, জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অফিস, পূর্বধলা : ০১৯১৬-৮২৬৬৬৮ ☎ উপজেলা যুব উন্নয়ন অফিসার, পূর্বধলা : ০১৭১১-৭৮৯৭৯৮ ☎ উপজেলা কৃষি অফিসার, পূর্বধলা : ০১৭১৬-৭৯৮৯৪৬ ☎ উপজেলা শিক্ষা অফিসার, পূর্বধলা : ০১৭১৫-৪৭৪২৯৬ ☎ উপজেলা সমবায় অফিসার, পূর্বধলা : ০১৭১৭-০৪৩৬৩৯ ☎ সম্পাদক পূর্বকন্ঠ ☎ ০১৭১৩৫৭৩৫০২ ☎
মোঃ শফিকুল আলম শাহীন সম্পাদক ও প্রকাশক
পূর্বকণ্ঠ ২০১৬ সালে তথ্য অধিদপ্তরে নিবন্ধনের জন্য আবেদিত।
বার্তা ও সম্পাদকীয় কার্যালয়

স্টেশন রোড, পূর্বধলা, নেত্রকোনা।

হেল্প লাইনঃ +৮৮০৯৬৯৬৭৭৩৫০২

E-mail: info@purbakantho.com