নেত্রকোনা ১০:৩১ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১০ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

কুষ্টিয়ায় জোসনার পর ডেঙ্গু কেড়ে নিলো মিনার জীবন,আক্রান্ত ইউপি চেয়ারম্যান ও স্বাস্থ্যকর্মী 

  • আপডেট : ০৪:৪১:৫০ অপরাহ্ন, বুধবার, ১১ সেপ্টেম্বর ২০১৯
  • ১২৫০ বার পঠিত

নজরুল ইসলাম মুকুল, কুষ্টিয়া:

কুষ্টিয়ার দৌলতপুর উপজেলায় বেড়েই চলেছে ডেংগু আক্রান্তের সংখ্যা। উপজেলা প্রশাসন, স্বাস্থ্য বিভাগ ও স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদের পক্ষ থেকে নানা পদক্ষেপ গ্রহণের পরও ঠেকানো যাচ্ছে না এডিস মশা।

প্রতিদিনই নতুন নতুন এলাকায় ডেংগু রোগে আক্রান্ত হওয়ার তথ্য পাওয়া যাচ্ছে। আড়িয়া ও খলিসাকুন্ডি ইউনিয়নে এখন ডেংগু আক্রান্তের সংখ্যা শতাধিক।

এডিস মশা নিধন ও আক্রান্তদের প্রাথমিক স্বাস্থ্যসেবা দেয়ার সময় ডেংগুতে আক্রান্ত হয়েছেন আড়িয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সাঈদ আনছারী বিপ্লব ও স্বাস্থ্যকর্মী ওয়ালিউর রহমান।

তারা বর্তমানে কুষ্টিয়া সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে। এরই মধ্যে মঙ্গলবার সকালে খলিসাকুন্ডি ইউনিয়নের শ্যামনগর গ্রামে ডেংগুতে আক্রান্ত হয়ে জোসনা খাতুন (৫৫) নামে এক নারীর মৃত্যু হয়েছে। এদিকে কুষ্টিয়ার ভেড়ামারায় ডেংগু আক্রান্ত হয়ে মিনা খাতুন (২৫) নামে এক গৃহবধূর মৃত্যু হয়েছে। সে ভেড়ামারা উপজেলার ধরমপুর ইউনিয়নের কাজিহাটা গ্রামের রায়হান আলীর স্ত্রী।

মঙ্গলবার (১০ সেপ্টেম্বর) ভোর ৬টার দিকে ভেড়ামারা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়।
স্থানীয় স্বাস্থ্যকর্মী ও এলাকাবাসীর সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, দৌলতপুর উপজেলায় সর্বপ্রথম আড়িয়া ইউনিয়নের ছাতারপাড়া গ্রামে ডেংগু রোগী শনাক্ত হয়। বর্তমানে এই গ্রামে আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে ৬২ জনে দাঁড়িয়েছে। রোগের কারণ অনুসন্ধান ও তথ্য সংগ্রহে স¤প্রতি স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের রোগতত্ত¡, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা ইনস্টিটিউটের (আইইডিসিআর) চার সদস্যের বিশেষজ্ঞ দল ছাতারপাড়া গ্রামে কাজ করে গেছেন।

সব মিলিয়ে আড়িয়া ইউনিয়নে ৮০ জন ডেংগু রোগী শনাক্ত করা হয়েছে। পাশের খলিসাকুন্ডি ইউনিয়নের কয়েকটি গ্রামে আরও ২৫ জনকে শনাক্ত করা হয়েছে। উপজেলার রিফায়েতপুর, শিতলাইপাড়া ও মহিষকুন্ডি গ্রামে অন্তত ১০ জন ডেংগুতে আক্রান্তের খবর পাওয়া গেছে।

স্থানীয় স্বাস্থ্য বিভাগের তথ্যমতে, প্রতিদিনই বাড়ছে ডেংগু রোগে আক্রান্তের সংখ্যা। ডেংগু প্রতিরোধে যারা কাজ করছেন তারাও রয়েছেন শংকায়। ডেংগু রোগীদের প্রাথমিক স্বাস্থ্যসেবা ও রোগী শনাক্তকরণের কাজে নিয়োজিত ছিলেন ছাতারপাড়া কমিউনিটি ক্লিনিকে কর্মরত সিএইসিপি ওয়ালিউর রহমান। তিনি গত বুধবার ডেংগুতে আক্রান্ত হয়ে কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

এছাড়া শনিবার স্থানীয় আড়িয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সাঈদ আনছারী বিপ্লব ডেংগুতে আক্রান্ত হয়েছেন। পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা অভিযানসহ ডেংগু প্রতিরোধে কাজ করছিলেন তিনি। রোগীদের প্রয়োজনীয় চিকিৎসা ও ডেংগু রোগী শনাক্তে স্থানীয় স্বাস্থ্য বিভাগ থেকে স্বাস্থ্যকর্মীদের সমন্বয়ে টিম কাজ করছে।

আড়িয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সাঈদ আনছারী বিপ্লব বলেন, আমার ইউনিয়নের মানুষ সবচেয়ে বেশি এডিস মশার আক্রমণের শিকার হয়েছেন। জেলা ও উপজেলা প্রশাসনের নির্দেশে ডেংগু রোধে দিনরাত সেখানে কাজ করেছি আমি। ডেংগু প্রতিরোধে কাজ করতে গিয়ে নিজেও এখন ডেংগু রোগে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার নেতৃত্বে আড়িয়া ও খলিষাকুন্ডি ইউনিয়নের গ্রামগুলোতে প্রতিদিনই পরিস্কার পরিচ্ছনতা অভিযান, এডিস মশা ও তার লার্ভা নিধনে ঔষধ স্প্রে এবং জনসচেতনতা মূলক কার্যক্রম চালানো হচ্ছে।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শারমিন আক্তার বলেন, উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে সর্বোচ্চ সতর্কতা অবলম্বন ও এডিস মশা নিধনে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের পরও এডিস মশা ও ডেংগু নিয়ন্ত্রণ করা যাচ্ছে না। কেন যাচ্ছে না সে বিষয়ে নতুন পরিকল্পনা করা হচ্ছে। এ বিষয়ে গ্রামবাসীকে আরও সচেতন হওয়ার পরামর্শ দেন তিনি।

আপনার মন্তব্য লিখুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষণ করুন

প্রকাশক ও সম্পাদক সম্পর্কে-

শফিকুল আলম শাহীন

আমি একজন ওয়েব ডেভেলপার ও সাংবাদিক। আমি দৈনিক ইত্তেফাক পত্রিকায় পূর্বধলা উপজেলা সংবাদদাতা হিসেবে কর্মরত । সেইসাথে পূর্বকণ্ঠ অনলাইন প্রকাশনার সম্পাদক ও প্রকাশক। আমার বর্তমান ঠিকানা স্টেশন রোড, পূর্বধলা, নেত্রকোনা। আমি জীবনের প্রতিটি ক্ষেত্রে ইতিবাচক। আমার ধর্ম ইসলাম। আমি করতে, দেখতে এবং অভিজ্ঞতা করতে পছন্দ করি এমন অনেক কিছু আছে। আমি আইটি সেক্টর নিয়ে বিভিন্ন এক্সপেরিমেন্ট করতে পছন্দ করি। যেমন ওয়েব পেজ তৈরি করা, বিভিন্ন অ্যাপ তৈরি করা, রেডিও স্টেশন তৈরি করা, অনলাইন সংবাদপত্র তৈরি করা ইত্যাদি। আমার সম্পাদনায় প্রকাশিত পূর্বকন্ঠ পত্রিকাটি স্বাধীনতার চেতনায় একটি নিরপেক্ষ জাতীয় অনলাইন । পাঠক আমাদের সবচেয়ে বড় অনুপ্রেরনা। পূর্বকণ্ঠ কথা বলে বাঙালির আত্মপ্রত্যয়ী আহ্বান ও ত্যাগে অর্জিত স্বাধীনতার। কথা বলে স্বাধীনতার চেতনায় উদ্বুদ্ধ হতে। ছড়িয়ে দিতে এ চেতনা দেশের প্রত্যেক কোণে কোণে। আমরা রাষ্ট্রের আইন কানুন, রীতিনীতির প্রতি শ্রদ্ধাশীল। দেশপ্রেম ও রাষ্ট্রীয় আইন বিরোধী এবং বাঙ্গালীর আবহমান কালের সামাজিক সহনশীলতার বিপক্ষে পূর্বকন্ঠ কখনো সংবাদ প্রকাশ করে না। আমরা সকল ধর্মমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল, কোন ধর্মমত বা তাদের অনুসারীদের অনুভূতিতে আঘাত দিয়ে আমরা কিছু প্রকাশ করি না। আমাদের সকল প্রচেষ্টা পাঠকের সংবাদ চাহিদাকে কেন্দ্র করে। তাই পাঠকের যে কোনো মতামত আমরা সাদরে গ্রহন করব। প্রয়োজনে: ০১৭১৩৫৭৩৫০২

কুষ্টিয়ায় জোসনার পর ডেঙ্গু কেড়ে নিলো মিনার জীবন,আক্রান্ত ইউপি চেয়ারম্যান ও স্বাস্থ্যকর্মী 

আপডেট : ০৪:৪১:৫০ অপরাহ্ন, বুধবার, ১১ সেপ্টেম্বর ২০১৯

নজরুল ইসলাম মুকুল, কুষ্টিয়া:

কুষ্টিয়ার দৌলতপুর উপজেলায় বেড়েই চলেছে ডেংগু আক্রান্তের সংখ্যা। উপজেলা প্রশাসন, স্বাস্থ্য বিভাগ ও স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদের পক্ষ থেকে নানা পদক্ষেপ গ্রহণের পরও ঠেকানো যাচ্ছে না এডিস মশা।

প্রতিদিনই নতুন নতুন এলাকায় ডেংগু রোগে আক্রান্ত হওয়ার তথ্য পাওয়া যাচ্ছে। আড়িয়া ও খলিসাকুন্ডি ইউনিয়নে এখন ডেংগু আক্রান্তের সংখ্যা শতাধিক।

এডিস মশা নিধন ও আক্রান্তদের প্রাথমিক স্বাস্থ্যসেবা দেয়ার সময় ডেংগুতে আক্রান্ত হয়েছেন আড়িয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সাঈদ আনছারী বিপ্লব ও স্বাস্থ্যকর্মী ওয়ালিউর রহমান।

তারা বর্তমানে কুষ্টিয়া সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে। এরই মধ্যে মঙ্গলবার সকালে খলিসাকুন্ডি ইউনিয়নের শ্যামনগর গ্রামে ডেংগুতে আক্রান্ত হয়ে জোসনা খাতুন (৫৫) নামে এক নারীর মৃত্যু হয়েছে। এদিকে কুষ্টিয়ার ভেড়ামারায় ডেংগু আক্রান্ত হয়ে মিনা খাতুন (২৫) নামে এক গৃহবধূর মৃত্যু হয়েছে। সে ভেড়ামারা উপজেলার ধরমপুর ইউনিয়নের কাজিহাটা গ্রামের রায়হান আলীর স্ত্রী।

মঙ্গলবার (১০ সেপ্টেম্বর) ভোর ৬টার দিকে ভেড়ামারা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়।
স্থানীয় স্বাস্থ্যকর্মী ও এলাকাবাসীর সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, দৌলতপুর উপজেলায় সর্বপ্রথম আড়িয়া ইউনিয়নের ছাতারপাড়া গ্রামে ডেংগু রোগী শনাক্ত হয়। বর্তমানে এই গ্রামে আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে ৬২ জনে দাঁড়িয়েছে। রোগের কারণ অনুসন্ধান ও তথ্য সংগ্রহে স¤প্রতি স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের রোগতত্ত¡, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা ইনস্টিটিউটের (আইইডিসিআর) চার সদস্যের বিশেষজ্ঞ দল ছাতারপাড়া গ্রামে কাজ করে গেছেন।

সব মিলিয়ে আড়িয়া ইউনিয়নে ৮০ জন ডেংগু রোগী শনাক্ত করা হয়েছে। পাশের খলিসাকুন্ডি ইউনিয়নের কয়েকটি গ্রামে আরও ২৫ জনকে শনাক্ত করা হয়েছে। উপজেলার রিফায়েতপুর, শিতলাইপাড়া ও মহিষকুন্ডি গ্রামে অন্তত ১০ জন ডেংগুতে আক্রান্তের খবর পাওয়া গেছে।

স্থানীয় স্বাস্থ্য বিভাগের তথ্যমতে, প্রতিদিনই বাড়ছে ডেংগু রোগে আক্রান্তের সংখ্যা। ডেংগু প্রতিরোধে যারা কাজ করছেন তারাও রয়েছেন শংকায়। ডেংগু রোগীদের প্রাথমিক স্বাস্থ্যসেবা ও রোগী শনাক্তকরণের কাজে নিয়োজিত ছিলেন ছাতারপাড়া কমিউনিটি ক্লিনিকে কর্মরত সিএইসিপি ওয়ালিউর রহমান। তিনি গত বুধবার ডেংগুতে আক্রান্ত হয়ে কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

এছাড়া শনিবার স্থানীয় আড়িয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সাঈদ আনছারী বিপ্লব ডেংগুতে আক্রান্ত হয়েছেন। পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা অভিযানসহ ডেংগু প্রতিরোধে কাজ করছিলেন তিনি। রোগীদের প্রয়োজনীয় চিকিৎসা ও ডেংগু রোগী শনাক্তে স্থানীয় স্বাস্থ্য বিভাগ থেকে স্বাস্থ্যকর্মীদের সমন্বয়ে টিম কাজ করছে।

আড়িয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সাঈদ আনছারী বিপ্লব বলেন, আমার ইউনিয়নের মানুষ সবচেয়ে বেশি এডিস মশার আক্রমণের শিকার হয়েছেন। জেলা ও উপজেলা প্রশাসনের নির্দেশে ডেংগু রোধে দিনরাত সেখানে কাজ করেছি আমি। ডেংগু প্রতিরোধে কাজ করতে গিয়ে নিজেও এখন ডেংগু রোগে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার নেতৃত্বে আড়িয়া ও খলিষাকুন্ডি ইউনিয়নের গ্রামগুলোতে প্রতিদিনই পরিস্কার পরিচ্ছনতা অভিযান, এডিস মশা ও তার লার্ভা নিধনে ঔষধ স্প্রে এবং জনসচেতনতা মূলক কার্যক্রম চালানো হচ্ছে।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শারমিন আক্তার বলেন, উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে সর্বোচ্চ সতর্কতা অবলম্বন ও এডিস মশা নিধনে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের পরও এডিস মশা ও ডেংগু নিয়ন্ত্রণ করা যাচ্ছে না। কেন যাচ্ছে না সে বিষয়ে নতুন পরিকল্পনা করা হচ্ছে। এ বিষয়ে গ্রামবাসীকে আরও সচেতন হওয়ার পরামর্শ দেন তিনি।