শনিবার ১৩ই এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ৩০শে চৈত্র, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

কাশ্মিরে গণহত্যা বন্ধের দাবীতে পূর্বধলায় বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ

 |  আপডেট ৫:১৩ অপরাহ্ণ | শনিবার, ১৪ সেপ্টেম্বর ২০১৯ | প্রিন্ট  | 411

কাশ্মিরে গণহত্যা বন্ধের দাবীতে পূর্বধলায় বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ

পূূর্বধলা (নেত্রকোনা) প্রতিনিধি:

কাশ্মিরে গণহত্যা বন্ধ ও স্বাধীনতাকামী জনগণের সাংবিধানিক অধিকার ফিরিয়ে দেয়ার দাবীতে নেত্রকোনার পূর্বধলায় আজ শনিবার বিকেলে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ করেছে জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশ পূর্বধলা উপজেলা শাখা।


জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশ এর কেন্দ্রীয় নেতা ও উপজেলা জমিয়তের আহবায়ক প্রিন্সীপাল আব্দুল ওয়াহহাব হামিদীর নেতৃত্বে বিক্ষোভ মিছিলটি পূর্বধলা জামে মসজীদ ইসলামীয়া মাদ্রাসার চত্বর থেকে বের হয়ে উপজেলা সদরের প্রধান প্রধান রাস্তা প্রদক্ষিন শেষে জামে মসজীদের সামনে এক সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

সমাবেশে প্রিন্সীপাল আব্দুল ওয়াহহাব হামিদীর সভাপতিত্বে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, উপজেলা জমিয়তের যুগ্ম আহবায়ক আলহাজ্ব মাওলানা আব্দুল আওয়াল, কেন্দ্রীয় ছাত্র জমিয়তের নির্বাহী সদস্য মুফতী জামিল কাসেমী কাঞ্চনপুরী, উপজেলা যুব জমিয়তের আহবায়ক মাওলানা ইমদাদুল হক, উপজেলা যুব জমিয়তের সদস্য সচিব মাওলানা হাবিবুল্লাহ, উপজেলা ছাত্র জমিয়তের আহবায়ক ফারুক আহমদ প্রমুখ।

এসময় বক্তারা বলেন, ভারত সরকার দেশের সংবিধানের ৩৭০ অনুচ্ছেদ বাতিল করে মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ জম্মু ও কাশ্মিরের বিশেষ মর্যাদা এবং জনগণের স্বায়ত্বশাসনের বিলোপ ঘটিয়ে জম্মু কাশ্মির এবং লাদাখ দু‘টি কেন্দ্র শাসিত অঞ্চলে সৃষ্টি করার ঘোষণা দিয়ে সাংবিধানিক ও নাগরিক অধিকার হরণ করেছে।

ভারত সরকার মুসলিম জাতিসত্বা এবং সে দেশের দীর্ঘ দিনের ঐতিহ্যকে ধ্বংস করে দিয়েছে। ভারত সরকার ইতোমধ্যে অনেক নেতা এবং নিরীহ নাগরিকগণকে গণহত্যা, নারী-শিশু ধর্ষণ ও গণগ্রেফতার করে লোমহর্ষক অবস্থার সৃষ্টি করেছে যা জঘণ্য অন্যায়, অমানবিক ও আন্তর্জাতিক আইনের চরম লংঘন এবং মানবাধিকার পরিপন্থি।

নেতৃবৃন্দ বলেন, যে কাশ্মিরকে বলা হতো “প্যারাডাইজ অব আর্থ“ অর্থ্যৎ পৃথিবীর ভূস্বর্গ। ১৯৪৭ সালের পর থেকেই ভারত সরকার জম্মু কাশ্মিরের সংখ্যা গরিষ্ঠ মুসলমানদের মতামত উপেক্ষা করে সামরিক শক্তির জোরে দখল করে রেখেছে। জম্মু ও কাশ্মিরের মুসলমানদের স্বাধীনতার প্রশ্নে জাতিসংঘে ১৯৪৮সালে গণভোটের সিদ্ধান্তকারী প্রস্তাব গৃহীত হয়। ভারত সে প্রস্তাবে সম্মতি দিয়ে প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল কিন্তু তা রক্ষা করেনি।

জম্মু কাশ্মিরের মুসলমানদের উপর ৭২ বছর পর্যন্ত চরম জুলুম নির্যাতন ও গণহত্যা চালাচ্ছে এবং মুসলমানদের নিশ্চিহ্ন করার জন্য ষড়যন্ত্র করছে। জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের নেতৃবৃন্দ কাশ্মিরের গণহত্যা বন্ধ এবং স্বাধীনতাকামী জনগণের নাগরিক এবং সংবিধানিক অধিকার ফিরেয়ে দেয়ার জন্য ভারত সরকারের প্রতি উদাত্ত আহবান জানান।

নেতৃবৃন্দ আরো বলেন, ২০১৬ সালে ভারতের হাইকোর্টে যে রায় দেয়া হয় তাতে বলা হয় জম্মু ও কাশ্মির কোন সময় ভারতের অংশ ছিল না এবং এখনো এর অংশ নয়। ভারতীয় সংবিধানের ৩৭০ নং অনুচ্ছেদে এই রাজ্যকে বিশেষ মর্যাদা দেয়া হয়েছে যা সংশোধন, বাতিল বা রদ করা যাবে না। কাম্মিরের জনগণের দাবী এই কাশ্মির শুধু কাশ্মিরীদের। কাশ্মিরকে স্বাধীন রাষ্ট্র হিসেবে স্বীকৃতি দেয়াই এই কাশ্মির সমস্যার একমাত্র সমাধান।

নেতৃবৃন্দ কাশ্মিরকে রক্ষা করার জন্য গণহত্যা বন্ধ, ভারতীয় সেনাবাহিনী প্রত্যাহার ও অবিলম্বে জম্মু-কাশ্মির ও লাদাখকে কেন্দ্র শাসিত অঞ্চল করার ঘোষণা প্রত্যাহার এবং খুন,ধর্ষণ ও নির্যাতন বন্ধের জন্য মুসলিশ রাষ্ট্র,জাতিসংঘ এবং ওআইসিসহ সকল মানবাধিকার সংস্থা এবং শান্তিকামী দেশ ও জনগণের প্রতি কাশ্মিরের স্বাধীনতাকামী জনগণের পাশে দাঁড়ানোর জন্য উদাত্ত আহবান জানান।

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

advertisement
advertisement
advertisement
এক ক্লিকে বিভাগের খবর
মোঃ শফিকুল আলম শাহীন প্রকাশক ও সম্পাদক
বার্তা ও সম্পাদকীয় কার্যালয়

স্টেশন রোড, পূর্বধলা, নেত্রকোনা।

হেল্প লাইনঃ ০১৭১৩৫৭৩৫০২

E-mail: info@purbakantho.com